রাজ্য়ে ২১ মে পর্যন্ত বাড়তে পারে লকডাউনের সময়সীমা। সোমবার নবান্নে এমনই ইঙ্গিত দিলেন মুখ্য়মন্ত্রী মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায়। ঘটনাচক্রে এদিন সকালেই লকডাউন পরিস্থিতি নিয়ে মুখ্য়মন্ত্রীদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে বৈঠক করেন প্রধানমন্ত্রী। মুখ্য়মন্ত্রী জানিয়েছেন, লকডাউন চালিয়ে যাওয়ার পক্ষে ইঙ্গিত দিয়েছেন নরেন্দ্র মোদীও।  

এবার পিপিই-তে তৃণমূল বিধায়কের নাম, লজ্জাজনক কাজ বললেন বাবুল..

৩ মে -র পর বাড়তে পারে লকডাউন। সোমবার মুখ্য়মন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠকে সেইরকমই কিছু বলবেন ভেবেছিলেন সবাই। এদিন নবান্নে যা নিয়ে মুখ খোলেন মুখ্য়মন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক প্রসঙ্গে মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায় বলেন, লকডাউন আরও বাড়ানোর ইঙ্গিত দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী৷ অন্তত ওনার শরীরী ভাষা দেখে তাই মনে হয়েছে৷ তবে রাজ্য়ে কততদিন আরও লকডাউন হবে তা নিয়ে তারিখও বলে দেন মুখ্য়মন্ত্রী। তবে এ বিষেয়ে এখনই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি বলে জানান তিনি। 

বাবুলের কথা এবার চিকিৎসক সংগঠনের মুখে,করোনায় মৃত্যু স্বাস্থ্য়কর্তার -স্বীকার করুক রাজ্য.

পশ্চিমবঙ্গে ২১ মে পর্যন্ত লকডাউন চালিয়ে যাওয়ার পক্ষপাতী রাজ্য সরকার৷ এই প্রসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, আজ ও কাল আমরা অপেক্ষা করব৷ পরশু আমরা এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেব। তবে লকডাউন নিয়ে এদিন কেন্দ্রের সিদ্ধান্তের সমালোচনা করতেও ছাড়েননি মুখ্য়মন্ত্রী। তিনি বলেন, রাজ্য় সরকার তো পুরোপুরি লকডাউনের পক্ষে৷ কিন্তু কেন্দ্র একবার বলছে লকডাউন আরও কড়াকড়ি করতে হবে, আবার বলছে দোকান খুলে দিতে হবে৷ দোকান খুললে তো রাস্তায় ভিড় বাড়বেই৷ মানুষকে কীভাবে আটকাব৷ দোকান খুলে রাখলে লকডাউন ব্যর্থ  হবেই।

৩ মে'র পর ২ সপ্তাহ ধরে উঠে যাক লকডাউন, এমনই চান নাগরিক মমতা.
 
তবে এই বলেই থেমে থাকেননি মুখ্য়মন্ত্রী। তিনি জানান, রাজ্য়ে করোনা মোকাবিলায় নতুন মন্ত্রীগোষ্ঠী  গঠন করা হয়েছে। রেড জোনে আরও বেশি কড়াকড়ি হবে৷ একটু ছাড় অরেঞ্জ ও গ্রিন জোনে৷ রাজ্য়ের করোনা পরিস্থিতির উপর ওই মন্ত্রিগোষ্ঠী নজর রাখবে।