মৃতের পরিবারের অভিযোগ,প্রতিভা কুজু নামের ওই মহিলাকে আত্মহত্য়ায় প্ররোচনা দেন তাঁর স্বামী লিবন। এরপরই বিষ খেয়ে আত্মহত্যা করেন ওই মহিলা। পুলিশ সূত্রে 
খবর সম্প্রতি অশান্তি লেগেই থাকত ভার্গিস পরিবারে। বহুবার স্বামীর সঙ্গে অশান্তি হত রাঁচির বাসিন্দা প্রতিভার। কিন্তু ঘটনার আগের দিন রাতে অশান্তি চরম আকার নেয়। রাতে লিবন কাজে বেরিয়ে গেলে বার বার ফোন করেন প্রতিভাকে । কিন্তু ফোন ধরেননি প্রতিভা। পরের দিন সকালে এসে দরজা ধাক্কালেও কোনও সাড়া না পাওয়ায় সন্দেহ দানা বাঁধে তাঁর মনে। শেষে দরজা ভেঙে ঘরে ঢোকেন লিবন। দেখেন স্ত্রী মাটিতে অচৈতন্য় হয়ে মাটিতে পড়ে আছেন। পাশে বিষের শিশি পড়ে।

আরও পড়ুন :রাতে লুকিয়ে অন্য মহিলাকে ফোন স্বামীর, মেদিনীপুরে আত্মঘাতী স্ত্রী 

আরও পড়ুন : আমি খুন শুরু করলে বংশ লোপাট করে দেব, ফের বেফাঁস দিলীপ

প্রতিভার পরিবারের দাবি,বাড়িতে এসেই তাঁদের কাছে ফোন করেন কেরালার বাসিন্দা লিবন। জামাই জানান, তাঁদের মেয়ে বিষ খেয়েছে। এরপর হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা মহিলাকে মৃতে ঘোষণা করেন। ঘটনার পর বিধাননগর দক্ষিণ থানায় লিবনের বিরুদ্ধে আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগ করে প্রতিভার পরিবার। মঙ্গলবার তাঁকে বিধানন গর মহকুমা আদালতে তোলা হয়। 
জানা গেছে,সল্টলেকের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ২০০৪ সাল থেকে চাকরি করতেন প্রতিভা। সেখানেই লিবনের সঙ্গে আলাপ হয় তাঁর। পরে আলাপ প্রেমে বদলে যায়। বিয়ের বন্ধনে আবদ্ধ হন তাঁরা। কিন্তু ঘরের মেয়ের য়ে এই দশা হবে তা কল্পনাও করতে পারেনি মৃতের পরিবার।

আরও পড়ুন :সিনেমা হলের মধ্যে বিশেষ ঘর, বনগাঁয় মধুচক্রের কারবার ফাঁস

আরও পড়ুন :এক বিয়েতেই বিখ্যাত বড়ুয়া, বাড়িতে গিয়ে বরকে শুভেচ্ছা জানালেন বিডিও