রাজ্য় জুড়ে করোনা মোকাবিলায় চলছে লকডাউন। এই পরিস্থিতিতে সবার মুখে একটা প্রশ্ন রান্নার গ্য়াস পাওয়া যাবে তো। আর এবার গ্য়াস সংস্থার ডিলারাই আশ্বাস দিয়ে গ্রাহকদের জানালেন লকডাউনেও সিলিন্ডার পাওয়া যাবে। বরং আতঙ্কিত হয়ে কেউ যেন বুকিং না করেন।

আরও পড়ুন, লকডাউন কেড়ে নিল এক দুঃস্থ ব্যক্তির প্রাণ, সাউথ পোর্ট থানা এলাকায় চাঞ্চল্য


এদিকে টালা থেকে টালিগঞ্জ, বালি থেকে বালিগঞ্জ সহ বিভিন্ন জেলায় গ্রাহকদের অভিযোগ তারা সিলিন্ডার পাচ্ছেন না।গ্রাহকদের অভিযোগ, সিলিন্ডার বুক করলেও সিলিন্ডার পেতে দেরি হচ্ছে তাদের। বেশিরভাগ জায়গায় গিয়ে দেখা যাচ্ছে  দোকান বন্ধ। কোথাও কোথাও আবার গ্যাস ডেলিভারি করার বয় নেই। সংস্থার তরফ থেকে বলা হচ্ছে, ডেলিভারি বয়রা কাজে যোগ দিতে পারছেন না। এদিকে লকডাউন পরিস্থিতিতে দোকানে গিয়ে সিলিন্ডার আনার কথা যারা ভেবেছিলেন, তারাও পুলিশি টহলের ভয়ে শেষ পর্যন্ত নিয়ে আসার সাহস দেখাননি। গ্রাহকদের চিন্তা যে স্বাভাবিক তা মেনে নিচ্ছেন সংস্থার ডিলাররাও। তাদের দাবি, করোনা সংক্রমণের ভয়ে কিছু গাড়ির চালক ও ডেলিভারি বয় কাজে যোগ দিচ্ছেন না।

আরও পড়ুন, লকডাউনে জরুরি পরিষেবা দিতে সরকারির সঙ্গে চলবে ২২ বেসরকারি বাস, জানুন বিস্তারিত

  তবে তেল সংস্থা ও ডিলাররা জানিয়েছেন আতঙ্কিত হয়ে কেউ যেন বুকিং না করেন। তাদের দাবি,গ্যাস উৎপাদন ও সিলিন্ডারের জোগান এখন স্বাভাবিক আছে। তবে গত ৪ দিন বুকিংয়ের পরিমাণ এক ধাক্কায় বেড়ে গেছে অনেকটাই। ইন্ডেন জানিয়েছে, তাদের গ্যাস বুকিং বেড়েছে ৫০ শতাংশ। এইচ পি গ্যাসের বুকিং বেড়েছে ৪০ শতাংশ আর ভারত গ্যাসের বুকিং বেড়েছে ৩৫ শতাংশ। গড়ে গোটা রাজ্যে সিলিন্ডার পৌছে দেওয়া হয় প্রতিদিন আড়াই  লক্ষ। বুকিং হয় প্রায় ২ লক্ষ।  যদিও গত তিনদিনে সেটা বেড়ে ৩ লক্ষ হয়ে গিয়েছে। তাই ডিলারদের দাবি, প্যানিক বুকিং করা বন্ধ হোক। ডেলিভারি বয়দের সাহায্য করা হোক। রাজ্য়বাসী সিলিন্ডার ঠিকই পাবে।

আরও পড়ুন, এবার নিজের খরচে হোটেলেও থাকা যাবে কোয়রান্টিনে, জানাল স্বাস্থ্য দফতর