অভিনব ভাবনায় এবারের পুজোতে বাজিমাত করতে চাইছে সল্টলেক বি-জে ব্লকের পুজো উদ্যোক্তারা। কচিকাঁচারা ছোটবেলা যে সমস্ত কাল্পনিক চরিত্র দের দেখে বেড়ে ওঠে, তাদেরকেই এবার পুজোর মণ্ডপে দেখা যাবে। না, অবশ্যই জ্যান্ত নয় কিন্তু পুতুলাকারে টিনটিন, অরণ্যদেব, ছোট ভীম, সুপার ম্যান, ব্যাটম্যান, গোপাল ভাঁড় প্রভৃতি চরিত্র গুলিকে মণ্ডপে উপস্থিত করতে চলেছেন এখানকার পুজোর উদ্যোক্তারা। তাই দর্শনার্থীরা এবার বি-জে ব্লকের পুজোয় ঢুকলেই দেখতে পেতে পারেন তাদের স্বাগত জানাচ্ছে পুতুল টিনটিন, কিংবা তাদের সঙ্গে দাঁড়িয়ে প্রতিমার উদ্দেশ্যে প্রণাম জানাচ্ছেন গোপাল ভাঁড়, যা ছোটদের তো বটেই সঙ্গে সঙ্গে বড়োদেরও মন কাড়বে আশা করাই যায়।

দেখে নিন- নাম লেখাননি এখনও, দেরি না করে অংশ নিন এশিয়ানেট নিউজ শারদ সম্মান ২০১৯-এ

বিশাল এই কর্মযজ্ঞের প্রস্তুতি শুরু হয়ে গেছে প্রায় তিন মাস আগে থেকেই। মণ্ডপ সজ্জার সঙ্গে যুক্ত শিল্পীরা দিনে ৮ থেকে ১০ ঘন্টা কাজ করে মণ্ডপ সজ্জার কাজটি সময়ের মধ্যে শেষ করতে বদ্ধপরিকর। থিমমেকার সৌরভ চক্রবর্তী এবং প্রধান শিল্পী সুব্রত দত্ত জানিয়েছেন কচিকাঁচাদের মনোরঞ্জনের সঙ্গে সঙ্গে পরিবেশ বান্ধব নানা গুরুত্বপূর্ণ বার্তাও দেখা যাবে মণ্ডপে। এক্ষেত্রে পরিবেশ রক্ষায় গাছের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকার বিষয়টিকে বিশেষভাবে ফুটিয়ে তুলছেন তারা। যদিও বাজেট এবং প্রতিমার বিষয়ে মুখ খুলতে চায়নি পুজো কর্তৃপক্ষ। পুজো উদ্যোক্তারা জানিয়েছেন ৩৬ তম বর্ষে তাদের পুজো টেক্কা দেবে আশেপাশের প্রায় সকল পুজোকেই।

আরও পড়ুন- নতুন ভাবনার অন্বেষণে বি-এইচ ব্লক

কচিকাঁচাদের নিয়ে সল্টলেকে ঠাকুর দেখতে বেরলে আসতেই হবে সল্টলেকের বি-জে ব্লকের এই বিশেষ বৈশিষ্ট্যপূর্ণ পুজোয়।