মৃতদেহ রাখার জায়গা নেই আর কলকাতা  মেডিকেল কলেজের মর্গে। প্রায় সমস্ত বেসরকারি হাসপাতালই মেডিকেলে রোগী রেফার করছে। যার দরুণ কোভিড অথবা  অন্যান্য রোগে আক্রান্ত মৃতদেহের সংখ্য়া আচমকা অনেকটাই বেড়ে গিয়েছে। তাই পরিস্থিতি সামলাতে মৃতদেহ 'ম্যানেজমেন্ট'-এর দায়িত্বে নিয়ে আসা হয়েছে এক অ্যাসিস্টেন্ট সুপারকে।

আরও পড়ুন, আমফান মোকাবিলায় সব ভাবে প্রস্তুত বাংলা, কাজে লাগছে বুলবুলের অভিজ্ঞতাও

সূত্রের খবর, কলকাতা মেডিকেল কলেজের মর্গে আর মৃতদেহ রাখার জায়গা নেই। গত ৪৮ ঘণ্টায় ১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে কোভিড হাসপাতাল মেডিকেল কলেজে। তাই এই বিষয়ে বাড়তি ব্য়বস্থা করতে স্বাস্থ্য় ভবনকে চিঠি লেখা হয়েছে। আবেদন পেয়েই ৬ টি অতিরিক্ত মৃতদেহ রাখার ডিপ ফ্রিজ বসানোর কাজ শুরু হয়েছে। কলকাতা মেডিক্য়ালের অ্য়ানাটমী বিভাগেও বিশেষভাবে বসানো হচ্ছে ওই ফ্রিজ। সব মিলিয়ে সোমবার অথবা মঙ্গলবার থেকে মোট ১১ টি মৃতদেহ রাখার বন্দোবস্ত করা হচ্ছে। 

আরও পড়ুন, ঘূর্ণিঝড় আমফানের প্রভাবে আজ থেকেই কলকাতায় বৃষ্টি ও ঝোড়ো হাওয়া, জারি হল হলুদ সতর্কতা

অপরদিকে দীর্ঘদিন ধরে হাসপাতাল কন্ট্রাক্ট সংস্থার অধীনে কাজ করা ঠিকা কর্মীদের অনেকেই এত মৃত্য়ুর ঘটনায় রীতিমত আতঙ্কিত। ভয়ে তাঁরা ওয়ার্ডে রোগীদের কাছাকাছি পর্যন্ত আসছেন না। তাই পরিস্থিতি সামাল দিতে নগদ টাকা গুনে প্রতিদিন চুক্তিভিত্তিক নতুন নতুন কর্মী নিয়োগ করার কাজ চলছে। সবদিক থেকে এই উদ্য়োগ  যা কার্যত নজিরবিহীন বলেই মনে করছেন স্বাস্থ্যমহল। 

 

 

 রাজ্য়ে ২৪ ঘণ্টায় মৃত ৬, করোনায় আক্রান্ত বেড়ে ১০১

কোভিড হাসপাতালে স্বাভাবিক মৃত্য়ুতেও পরিবার চাইলে সৎকার করবে কলকাতা পৌরসভা, জানালেন ফিরহাদ

করোনা আক্রান্ত প্রাণ হারালেন এবার রাজ্যের এক আইনজীবী, এদিকে আইসোলেশনে তাঁর স্ত্রী

কোভিড পজিটিভ হয়ে মৃত্য়ু প্রখ্যাত ইতিহাসবিদ হরিশঙ্কর বাসুদেবনের

 বেহালা হাসপাতালের প্রসুতির শরীরে মিলল এবার করোনার জীবাণু, কেপিসি-র ৩ রোগীর রিপোর্টও পজিটিভ

রোগী ফেলে পালাতে পারল না অ্যাম্বুল্যান্স, পিপিই পরা স্বাস্থ্য়কর্মীদেরকে তীব্র প্রতিবাদ নাকতলাবাসীর