একাধিক প্রাচীন গ্রন্থে ভাতের ফ্যানের উপকারীতা সম্বন্ধে রয়েছে বহু তথ্য। শরীরকে কীভাবে রোগমুক্ত রাখা যায়, সে নিয়েও ভাতের ফ্যানের এমন কিছু উপকারিতা রয়েছে যা অবাক করার মত। ভাতের ফ্যানে রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, খনিজ, ভিটামিন ই সহ আরও বেশ কিছু কার্যকরী উপাদান আমাদের শরীরে গঠনে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। তবে আমরা অজান্তেই এই জিনিসটি ফেলে নষ্ট করি। এই অতি সাধারন জিনিসটির অসাধারণ ব্যবহার সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

আরও পড়ুন- নয়া বাজেটে ফের বাড়ল রান্নার গ্যাসের দাম, চিন্তার ভাঁজ মধ্যবিত্তের কপালে

সাদা জামা-কাপড় কড়কড়ে করতে ব্যবহার করা হয় ফ্যান। এই জামা ইস্ত্রি করে নিলে নতুনের মতো লাগে। ত্বক একজিমা আক্রান্ত হলে নিয়মিত ঠান্ডা ভাতের ফ্যান তুলোয় করে আক্রান্ত স্থানে ব্যবহার করুন। এক সপ্তাহের মধ্যে উপকার পাবেন। দ্রুত ডায়েরিয়া থেকে মুক্তি পেতে ফ্যানের মধ্যে এক চিমটে লবন দিয়ে খেলে দ্রুত উপকার পাওয়া যায়। ত্বকের অ্যালার্জি বা ইনফেকশনের সমস্যা থাকলেও ব্যবহার করতে পারেন ভাতের ফ্যান।

আরও পড়ুন- প্রয়োজনের বেশি জল খেলে কিডনির বিপদ হতে পারে

ভাতের ফ্যান ফেলে না দিয়ে তা গাছের গোড়ায় বা টবে দিন। গাছের জন্য উৎকৃষ্ট সারের কাজ করে ভাতের ফ্যান। মুখ ভালো করে পরিষ্কার করে, ভাতের ফ্যান টোনার হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন। এতে ত্বকে টানটান ভাব থাকে। শ্যাম্পু করার পর কন্ডিশনার হিসেবে চুলে ব্যবহার করতে পারেন ফ্যান। এতে চুলের গড়া শক্তও হয় সেই সঙ্গে উজ্জ্বলতাও বৃদ্ধি পায়। ত্বকে অ্য়াকনের সমস্যা থাকলে ভাতের ফ্যান তুলোয় করে নিয়ে ব্যবহার করুন, ত্বকের লালচে ভাব কমে আসবে অনেক।