ভারতবর্ষে উৎপন্ন হয় না তবে এদেশে এই বাদামের চাহিদা বিপুল। ইরান, চীন, আফগানিস্থান ও অন্যান্য দেশ থেকে আমদানী করা হয় পেস্তা। এই বাদামের সবুজ রঙের জন্য, খাবার গার্জিনিং-এর কাজে প্রচুর পরিমানে ব্যবহার করা হয়। মিষ্টি, আইস্ক্রিম,পুডিং ইত্যাদির উপকরণ হিসেবেও ব্যবহৃত হয় পেস্তা। এছাড়া নোনতা ও স্যাঁকা পেস্তা ভীষন জনপ্রিয়। পেস্তা বাদামের থেকে তৈরী তেল চর্ম রোগের ওষুধ হিসাবেও ব্যবহার করা হয়। 

আরও পড়ুন- লোমহীন ত্বক পেতে, সহজেই বাড়িতেই বানিয়ে নিন ওয়াক্স

জনপ্রিয় এই বাদাম পুষ্টিগুণে ঠাসা। অনেকেই মনে করেন যে পেস্তা খেলে ফ্যাট বৃদ্ধি পাবে। সেই কারণে এই বাদাম অনেকেই খান খান। তবে জানেন কি রোগা হতে খুব উপকারী এই বাদাম। এই কারনেই ডায়েছে পেস্তা রাখার পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞরা। জেনে নেওয়া যাক কেন পাতে রাখবেন এই বাদাম। জেনে নিন এই বাদামের উপকারীতা।

আরও পড়ুন- টনসিলের ব্যথায় কষ্ট পাচ্ছেন, সেরে উঠুন এই ঘরোয়া টোটকায়

পেস্তার মধ্যে রয়েছে কপার। শরীরে আয়ন শোষণে সাহায্য করে এই কপার। ফলে অ্যানিমিয়া রুখতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে পেস্তা। পাশাপাশি রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণেও সাহায্য করে পেস্তা। ফলে হার্টের সমস্যা অনেক কমে যায়। শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিতে সাহায্য করে পেস্তা। এই বাদামে রয়েছে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন-৬, যা রক্তে হিমোগ্লোবিনের মাত্রা বাড়াতে সিদ্ধহস্ত। জানলে অবাক হবেন রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণেও সাহায্য করে পেস্তা। ফলে ডায়াবেটিস আক্রান্তরাও প্রতিদিনের ডায়েটে রাখতে পারেন এই বাদম।

আরও পড়ুন- চিকিৎসকের কাছে গেলে ভুলেও এই বিষয়গুলি লুকাবেন না, ঘটতে পারে মহা বিপদ

প্রতিদিনের ডায়েটে সামান্য পেস্তা পেশীর কর্মক্ষমতা বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। তাই বাড়িতে বয়স্কদের জন্য অত্যন্ত উপকারী এই বাদাম। যদি হজমের সমস্যায় ভোগেন তবে অবশ্যই খান পেস্তা। কারন এতে থাকা ডায়েটারি ফাইবার খাবার হজমে সাহায্য করে। আবার শুষ্ক ত্বকের সমস্যাও ম্যাজিকের মত কাজ করে পেস্তা। এতে থাকা স্যাচুরেটেড ফ্যাট শুষ্ক ত্বকের সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে। এর পাশাপাশি যৌন ক্ষমতা বৃদ্ধিতেও সাহায্য করে পেস্তা। বিশেষজ্ঞদের মতে, টানা ২১ দিন ডায়েটে পেস্তা রাখলে তা পুরুষদের যৌনক্ষমতা ৫০ শতাংশ পর্যন্ত বাড়িয়ে দেয়।