শরীরে ভিটামিনের ঘাটতি পূরণে সহায়ক ভিটামিন-ই ক্যাপসুল। এর পাশাপাশি এই ক্যাপসুলের রয়েছে অজানা অনেক গুন। ভিটামিন-ই ক্যাপসুলের সঠিক ব্যবহারে আপনি পেতে পারেন সুন্দর চুল ওত্বক। ভিটামিন ই ক্যাপসুল যে কোনও ওষুধের দোকানেই পাওয়া যায়। একটা মাত্র ক্যাপসুলেই ফিরে পেতে পারেন হারিয়ে যাওয়া সৌন্দর্য। তাহলে আর দেরি কিসের, জেনেও নেওয়া যাক সৌন্দর্যচর্চায় ভিটামিন-ই ক্যাপসুলে অজানা কিছু ব্যবহার।

আরও পড়ুন-অতিরিক্ত পালং শাক খাচ্ছেন, শরীরে ডেকে আনছেন মারাত্মক ক্ষতি...

ভিটামিন-ই ক্যাপসুল চুল বাড়াতে সাহায্য করে। অলিভ অয়েলর সঙ্গে ভিটামিন-ই ক্যাপসুল মিশিয়ে আধ ঘন্টা ভাল করে ম্যাসাজ করুন। চাইলে নারকেল তেলের সঙ্গেও লাগাতে পারেন।

মুখে ব্রণর দাগ থাকলে ক্যাপসুলের ভিতরে যে জেলটা রয়েছে দাগের মধ্যে সেটি লাগান। তারপর কিছুক্ষণ রেখে হালকা গরম জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

রোজ রাতে ঘুমোতে যাওয়ার আগে ভিটামিন-ই ক্যাপসুল সারা মুখে লাগান। এতে বলিরেখার মতোন সমস্যা খুব তাড়াতাড়ি কমে যাবে।

ময়েশ্চারাইজার হিসেবেও কাজ করে ভিটামিন-ই ক্যাপসুল।

মধু ও লেবুর রসের সঙ্গে ভিটামিন-ই ক্যাপসুল ভাল করে লাগিয়ে নিন। হাত, পা শুকনো লাগলে এই প্যাক খুব উপকারী।

আরও পড়ুন-শরীরচর্চার উপযুক্ত সময় কোনটি, জানুন এখনই...

স্ট্রেচ মার্কস থাকলে সেই দাগ দূর করতে ভিটামিন-ই ক্যাপসুল খুব উপকারী। লেবুর রসের সঙ্গে ভিটামিন-ই ক্যাপসুল মিশিয়ে নিয়ে স্ট্রেচ মার্কসের মধ্যে লাগিয়ে নিন। ভাল উপকার পাবেন।

ঠোঁট ফাটার সমস্যায় শীতকালে সবাই ভুগে থাকেন। তাই রাতে ঘুমোতে যাবার আগে ভিটামিন-ই ক্যাপসুল লাগিয়ে নিন।

যাদের নখ ভঙ্গুর প্রকৃতির হয়, তারা গরম জলের মধ্যে ভিটামিন-ই ক্যাপসুল দিয়ে সেই জলে নখ ডুবিয়ে রাখুন। কিছুদিন করলে উপকার পাবেন।

চুলের ডগা নিয়মিত ফাটলে নারকেল তেলের সঙ্গে ভিটামিন-ই ক্যাপসুল মিশিয়ে প্রতিদিন মাথায় লাগান।