পথে-ঘাটে মেয়েদের বিপদের শেষ নেই। সরকারি হাসপাতালেও মহিলা কর্মীরা আর নিরাপদ নন! লুকিয়ে চেঞ্জিং রুমে নার্সদের ছবি তুলতে গিয়ে হাতনাতে ধরা পড়ল এক যুবক। ঘটনাটি ঘটেছে মালদহ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে। অভিযুক্তকে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।  প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন হাসপাতাল এমএসভিপি অমিত কুমার দাঁ।

আরও পড়ুন:ট্রেনে গাঁজা খাওয়ার প্রতিবাদ, যাত্রীদের ওপর হামলা নেশারুদের

সরকারি হোক বেসরকারি, হাসপাতালে নির্দিষ্ট পোশাক বা ইউনিফর্ম পড়ে ডিউটি  করতে হয় নার্সদের।  সাধারণ পোশাকে হাসপাতালেই আসেন তাঁরা। কাজে যোগ দেওয়ার আগে নির্দিষ্ট পোশাক পরে নেন। হাসপাতালে নার্সদের জন্য আলাদা চেঞ্জিং রুমও থাকে। রবিবার রাতে  মালদহ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের চেঞ্জিং রুমে যখন পোশাক বদল করছিলেন নার্সরা, তখন জানালা দিয়ে লুকিয়ে এক যুবক মোবাইলে ছবি তুলছিল বলে অভিযোগ। চেঞ্জিং রুমে যাঁরা পোশাক বদল করছিলেন, তাঁদের কয়েকজন ওই যুবককে দেখতে পান। হাতনাতে ধরাও পড়ে যায় সে। ঘটনার শোরগোল পড়ে যায় হাসপাতালে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে ঘটনাটি জানান নার্সরা। খবর দেওয়া হয় ইংরেজবাজার থানায়। অভিযুক্তকে আটক করেছে পুলিশ।

আরও পড়ুন: বাড়ির অমতে বিয়ে, শ্বশুরবাড়িতে গিয়ে মেয়েকে কোপাল বাবা

কিন্তু এই যুবকের পরিচয় কী? হাসপাতালে সে ঢুকলই বা কী করে?  ধরা পড়ার পর অভিযুক্ত নিজেকে হাসপাতালের কর্মী বলে পরিচয় দেয় বলে জানা গিয়েছে। মালদহ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে নার্সদের অবশ্য দাবি, ওই যুবকের হাসপাতালে কর্মী নয়। আগে তাকে কেউ হাসপাতালে দেখেওনি। নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন নার্সরা। হাসপাতালে চেঞ্জিং রুমের নকশা বদলে ফেলার আশ্বাস দিয়েছেন মালদহ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে এমএসভিপি অমিত কুমার দাঁ।