বিজেপিতে যোগদান করেছেন রবিবার। ব্রিগেজ প্যারেড গ্রাউন্ডের জনসভা থেকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর উপস্থিতে তিনি পদ্মপতাকা হাতে তুলে নিয়েছিলেন। তারপর এক সপ্তাহ কাটেনি, এরই মধ্যে অভিনেতা মিঠুন চক্রবর্তীকে ওয়াই প্লাস Y Plus নিরাপত্তা দেওয়া হচ্ছে বলে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্র সূত্রের খবর। বুধবার থেকেই তাঁকে এই নিরাপত্তা দাওয়া হচ্ছে। 

Y Plus নিরাপত্তায় কার্যত ১১ জন কমান্ডো থাকেন। তাঁরাই বাইরে সর্বদা ঘুরে রাখেন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিকে। একই সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি বা মহিলার বাড়ির চার পাশে  ৫৫ জন নিরাপত্তা কর্মী মোতায়েন থাকবে। মিঠুন চক্রবর্তী ৭ মার্চ বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন। তার মাত্র তিন দিন পর থেকেই এই বিশেষ নিরাপত্তা পাচ্ছেন তিনি। মিঠুন চক্রবর্তী জীবনের প্রথম দিকে নকসাল আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। পরবর্তীকালে তিনি বাংলার বাম সরকারের ঘনিষ্ট ছিলেন। তৎকালীন মন্ত্রী সুভাষ চক্রবর্তী ও তাঁর স্ত্রী রমলা চক্রবর্তীর সঙ্গে রীতিমত ঘনিষ্ঠতা ছিল মিঠুনের। ঘনিষ্টমহল জানিয়েছে তৎকালীম মুখ্যমন্ত্রী জ্যোতি বসুকে কাকু বলেও নাকি তিনি সম্বোধন করতেন। বাম জমানা পতনের পরই তিনি সুসম্পর্ক তৈরি করেন রাজ্যের ক্ষমতাসীন তৃণমূল সরকারের সঙ্গে। তৃণমূলের টিকিটে তিনি রাজ্যসভার সাংসদও হয়েছিলেন। কিন্তু চিটফান্ডেকাণ্ডে তাঁর নাম জড়িয়ে পড়ায় তিনি মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়ের সঙ্গে সম্পর্ক চ্ছিন্ন করেন। বর্তমানে তিনি তিনি প্রকাশ্য জনসভাকেই পদ্ম পতাকা হাতে তুলে নিয়েছেন।

ভারতই হতে পারে বিশ্বের দ্রুততম আর্থনৈতিক বিকাশের দেশ, দাবি প্যারিসের সংস্থার সমীক্ষায় ...  

দীর্ঘ পরীক্ষার পর মর্যাদা পেল করঞ্জ, বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে যুক্ত হল নৌবাহিনীতে ...


 তবে মিঠুন চক্রবর্তী একা নন। বিধানসভা নির্বাচনের আগে কেন্দ্রীয় সরকার বাংলার প্রায় ৬০ জন নেতাকে X ও  Y ক্যাটাগরির নিরাপত্তা দিচ্ছে। সূত্রের খবর ভোটের সময় বাংলার নিরাপত্তা নিয়ে বেশ কিছুটা উদ্বিগ্নও রয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক।  আগামী ২৭ মার্চ পশ্চিমবঙ্গে বিধানসভা নির্বাচন শুরু হবে। ২৯ এপ্রিলের মধ্যে ৮টি দফায় হবে ভোট গ্রহণ। বাকি রাজ্যগুলির সঙ্গে বাংলার নির্বাচনী ফলাফল ঘোষণা করা হবে ২ মে।