করোনাভাইসারের মারাত্মক প্রভাব পড়তে শুরু করেছে ভারতে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি লকডাউন ঘোষণা করার প্রথম দিনেই আক্রান্তের সংখ্যা ছুঁয়েছে ৬০৬। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য় ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী এই দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৬০৬। তবে এখনও পর্যন্ত সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরতে পেরেছেন মাত্র ৪২ জন। তবে করোনা আক্রান্তের সংখ্য নিয়ে রীতিমত উদ্বেগে মহারাষ্ট্র ও কেরল।

 মহারাষ্ট্রে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১২৮। কেরলে আক্রান্তের সংখ্যা ১০৯। তবে মধ্যপ্রদেশেও করোনাভাইরাসের সংক্রমণের প্রভাব পড়তে শুরু করেছে। বুধবার দুপুরে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। বর্তমানে মধ্যপ্রদেশে আক্রান্তের সংখ্যা ১৫। প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী কমল নাথের সাংবাদিক সম্মলনে উপস্থিত থাকা এক সাংবাদিকের নমুনায় করোনার জীবানু পাওয়া গেছে। যা আরও উদ্বেগ বাড়িয়েছে রাজ্যের শীর্ষ কর্তা ও রাজনৈতিক ব্য়ক্তিদের। 

 

গুজরাটেও করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। আক্রান্তের সংখ্যা ৩৮। পশ্চিমবঙ্গে আক্রান্ত হয়েছে ৯ জন। কেন্দ্রীয় সরকার জানিয়েছে এখনও পর্যন্ত করোনাভাইরাস পাদুর্ভাবের পরিপ্রেক্ষিতে এককোটিরও বেশি মানুষের সমীক্ষা করা হয়েছে। পরিস্থিতি মোকাবিলায় কেন্দ্র সবকরম সহযোগিতা করতে বলেও আশ্বাস দিয়েছে। মেডিক্যাল কিট ও চিকিৎসকদের নিরাপত্তার দিকেও গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে বলে জানান হয়েছে।  

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রুখতে সামাজিক দূরত্বকেই প্রধান হাতিয়ার করছে কেন্দ্র। জাতীয় উদ্দেশ্যেভাষণ দিয়ে ২১ দিনের জন্য দেশবাসীকে ঘরে থাকার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। গোটা দেশেই লকডাউন কার্যকর করা হয়েছে। বুধবারই ছিল লকডাউনের প্রথম দিন। পরিস্থিতি মোকাবিলায় রীতিমত কড়া পদক্ষেপ নিয়েছে কেন্দ্র সরকার। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে কেন্দ্রের লকডাউনের সিদ্ধান্ত কার্যকর করতে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে রাজ্য প্রশাসনও।