রাশিয়ান ভ্যাকসিন স্পুটনিক-ভি হিউম্যান ট্রায়ালের তৃতীয় পর্যায়ের ফলাফল অনুযায়ী করোনা সংক্রমন রোধে প্রায় ৯২ শতাংশ সফল হয়েছে। ডঃ রেড্ডি-র সঙ্গে রাশিয়ার IRDF এর সঙ্গে পুরানো চুক্তির আওতায় ভারতে এই ভ্যাকসিনের হিউম্যান ট্রায়াল শুরু হওয়ার কথা। অনুমোদনের পরে, বেলারুশ, সংযুক্ত আরব আমিরাত, ভেনিজুয়েলা এবং অন্যান্য দেশে তৃতীয় ধাপের হিউম্যান ট্রায়াল চলতে থাকে এবং ভারতে দ্বিতীয় এবং তৃতীয় পর্যায়ে এই ভ্যাকসিনের হিউম্যান ট্রায়ালের অনুমোদন মিলেছে। ব্রাজিল, চিন, দক্ষিণ কোরিয়া ও ভারত-সহ কমপক্ষে মোট ৫০ টি দেশে এই ভ্যাকসিন সরবরাহ করবে রাশিয়া।

আরও পড়ুন- করোনা টিকার দৌড়ে এগিয়ে কোভ্যাস্কিন, কোনও সমস্যা দেখা দেয়নি বলে জানালেন চিকিৎসক

ভারতে বছরে রাশিয়ার করোনার টিকা বা ভ্যাকসিনের ১০০ মিলয়ন অর্থাৎ প্রায় ১০ কোটি টিকা উত্পাদন করবে। রাশিয়ার IRDF এবং হায়দরাবাদ-এর হেটারো বায়োফর্মার মধ্যে টিকা উৎপাদন নিয়ে একটি চুক্তি হয়েছে। IRDF জানিয়েছে যে এটি ২০২১ সালের গোড়ার দিকে ভারতে এই টিকার উৎপাদনও শুরু হয়ে যাবে। IRDF এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ক্রিল দিমিত্রি বলেছেন, "IRDF এবং হেটেরোর মধ্যে চুক্তি ঘোষণায় আমরা সন্তুষ্ট। এই চুক্তি ভারত অত্যন্ত কার্যকর এবং নিরাপদ স্পুটনিক-ভি ভ্যাকসিন তৈরির পথ সুগম করবে,"  তিনি হেটেরোর সহযোগিতাকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন যে, উত্পাদন ক্ষমতা আরও বড় আকারে বাড়ানো যেতে পারে। ভারতের সমর্থন ছাড়া বিপুল পরিমাণ করোনার টিকা উৎপান সম্ভব নয় বলেই জানিয়েছেন  ক্রিল দিমিত্রি।

আরও পড়ুন- রক্তে হিমোগ্লোবিনের মাত্রার ঘাটতি রয়েছে, বুঝে নিন এই লক্ষণগুলি দেখে

সিনিয়র হেটরো-র অফিসার বি. মুরালী কৃষ্ণ রেড্ডি বিবৃতি জারি করেছেন, "আমরা ভারতে মানবিক বিচারের দিকেও নজর দিচ্ছি, আমরা বিশ্বাস করি যে স্থানীয়ভাবে এই টিকার উত্পাদন রোগীদের কাছে দ্রুত পৌঁছনোর সুযোগ করে দেবে।" তিনি আরও বলেছিলেন, "এই সহযোগিতা কোভিড -১৯-এর বিরুদ্ধে লড়তে আমাদের প্রতিশ্রুতির পরবর্তী পদক্ষেপ। ভারতের প্রধানমন্ত্রী 'মেক ইন ইন্ডিয়া'র লক্ষ্যে পৌঁছতেও বদ্ধ পরিকর আমরা।"