এবার থেকে আর উপসর্গহীন কিংবা মৃদু উপসর্গযুক্ত রোগীকে হাসপাতালে ভর্তি করে বেড নষ্ট করা যাবে না।  নির্দেশিকা জারি করে স্পষ্ট জানিয়ে দিল স্বাস্থ্য দপ্তর। পাশাপাশি, রোগী শারীরিকভাবে স্থিতিশীল হলে তাঁকে হাসপাতাল থেকে সেফ হোমে স্থানান্তরিত করতে হবে। বিনা কারণে হাসপাতালে বেশি দিন রাখা যাবে না।

আরও পড়ুন, অবশেষে কি খুলছে কলকাতা মেট্রোর দরজা, কি ছবি হতে চলেছে আনলক-৪-এ

স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে খবর,  হাসপাতালে শয্যাসংকট এড়াতে সেফ হোমগুলির গুরুত্ব বাড়ানোরও সিদ্ধান্ত হয়েছে। ঠিক হয়েছে, সব সেফ হোমে ২৪ ঘণ্টাই ডাক্তার-নার্স মোতায়েন থাকবেন। অ্যাডভাইসরিতে বলা হয়েছে, জিডিএমও ও আয়ুশ চিকিৎসকেরা মূলত এই সেফ হোমগুলির দায়িত্বে থাকবেন। এখানে বড় ভূমিকা নার্সদেরও থাকবে ।হাসপাতালের মতোই নিয়মিত তাঁরা রোগীকে পর্যবেক্ষণ করবেন। রাখতে হবে পর্যাপ্ত অক্সিজেনের ব্যবস্থাও। পালস অক্সিমিটারে নিয়মিত অক্সিজেন মাপবেন। প্রয়োজনমতো ব্যবস্থা নেবেন।

আরও পড়ুন, পাশের পরেও পরীক্ষা নিয়ে চিন্তায় বহু পড়ুয়া, সোমবার বৈঠকে বসছেন শিক্ষামন্ত্রী


শুক্রবার স্বাস্থ্য দপ্তর একটি অ্যাডভাইসরিতে দপ্তর জানিয়ে দিয়েছে, মৃদু্ উপসর্গযুক্তদের হাসপাতালে ভর্তি করার দরকার নেই। হোম আইসোলেশনে থাকতে কারও অসুবিধা হলে তাকে সেফ হোমে রাখতে হবে। উল্লেখ্য দেশের পঁচিশ রাজ্যে অ্যাক্টিভ রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। সেই সঙ্গে সামাল দিয়ে পারছে না ওই রাজ্যগুলির হাসপাতাল। যে সংখ্য়ক রোগী, নেই সেই সংখ্যক বেড। স্বাস্থ্য দপ্তর নির্ধারিত বিশেষজ্ঞ কমিটি বিভিন্ন কোভিড হাসপাতাল পর্যবেক্ষণ করেও এর ইঙ্গিত পেয়েছে। তারপরই কড়া বার্তা জানায় রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তর।

 

    

 

কোভিড রোগী ভর্তিতে ৫০ হাজার টাকার বেশি নেওয়া যাবে না, নয়া নির্দেশিকা জারি রাজ্যের

ভয় নেই করোনায়, মেডিক্য়ালের ৪ তলার কার্নিশে পা দোলাচ্ছে রোগী

ভুয়ো টেস্টের ফাঁদে পড়ে করোনায় মৃত্যু এক ব্য়াক্তির, গ্রেফতার প্রতারণা চক্রের ৩ জন

করোনায় ফের ১ এসবিআই কর্মীর মৃত্য়ু, মৃতের পরিবারকে চাকরি দেওযার দাবিতে ব্যাঙ্ক কর্মীরা