করোনার জেরে লকডাউন চলছে রাজ্য় জুড়ে। করোনাভাইরাস এর জেরে ইতিমধ্যেই রাজ্যের স্কুল কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় গুলি বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আর এই পরিস্থিতিতে সরকার ঘোষণা করেছে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলির ক্ষেত্রে অনলাইন ক্লাস চালু করতে। না হলে সারাবছরের সিলেবাস সামাল দেওয়া যাবে না। আর সেই কারনেই রাজ্যের প্রতিটি কলেজের কাছে অনলাইন ক্লাস নিয়ে বিস্তারিত রিপোর্ট চেয়ে পাঠাল উচ্চ শিক্ষা দফতর। 

আরও পড়ুন, বিদ্যুতের বিলে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত বিশেষ ছাড়, স্বস্তিতে রাজ্য়বাসী

  প্রায় এক মাস ধরে রাজ্যের কলেজ গুলি বন্ধ। এই পরিস্থিতিতে ছাত্র-ছাত্রীদের পড়াশোনা বজায় রাখতে  কলেজগলি কী বিকল্প ব্যবস্থা নিয়েছে, তা জানতে এবার কড়া মনোভাব দেখাতে চলেছে রাজ্যের উচ্চশিক্ষা দপ্তর। রাজ্যের বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজ গুলির ছুটি ঘোষণা পরেই অনলাইনে ক্লাস নেওয়া যায় নাকি সে বিষয়ে উপাচার্যদের পরামর্শ চেয়ে ছিলেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। যদিও শিক্ষামন্ত্রী এই আবেদনের পর থেকেই কলকাতা ও শহরতলীর কয়েকটি কলেজ অনলাইনে ক্লাস নিতে তৎপর হন।  এখনও পর্যন্ত অনলাইনে ক্লাস নেওয়ার ক্ষেত্রে রাজ্য়ের একাধিক কলেজ কোনও উদ্যোগই নেয়নি বলে অভিযোগ। তাই এবার এই বিষয়ে তৎপর রাজ্যের উচ্চ শিক্ষা দফতর।

আরও পড়ুন, ফের করোনা আক্রান্তের শেষকৃত্যে তুলকালাম, ধাপার শ্মাশানে বিক্ষোভ স্থানীয়দের

 করোনা সংক্রমণ রুখতে রাজ্যের কলেজ গুলি ছুটি বা বন্ধ থাকবে। যার দরুণ বিভিন্ন বর্ষের পড়ুয়াদের পঠন-পাঠনের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। শুধু তাই  একাধিক পরীক্ষা কয়েক মাস পর্যন্ত পিছিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনাও রয়েছে। কিন্তু এই সময়সীমার মধ্যেও কিছুটা হলেও যাতে ছাত্র-ছাত্রীদের সিলেবাস শেষ করা যায় সেই বিষয়ে কার্যত কলেজ গুলিকে উদ্যোগী হওয়ার পরামর্শ দিল রাজ্যের উচ্চশিক্ষা দপ্তর। সামনের বৃহস্পতিবারের মধ্যেই প্রত্যেকটি কলেজের অধ্যক্ষদের এই বিষয়ে রিপোর্ট পাঠাতে হবে। এখনও পর্যন্ত যে কলেজগুলিতে অনলাইন ক্লাস শুরু হয়নি তারা উচ্চ শিক্ষা দফতরের প্রশ্নের মুখে পড়বে।

ফের তথ্য গোপন করোনা আক্রান্ত প্রৌঢ়ের ভাইয়ের, আইসোলেশনে ভর্তি বরানগরের বাসিন্দা

জ্বর নিয়েই ট্রেন করে একটানা অফিস, ভয়ে কাঁটা রাজ্য়ের করোনা আক্রান্তর সহকর্মীরা
 

রাজ্যে আরও এক করোনা আক্রান্তের হদিশ,সংক্রমিতের সংখ্যা বেড়ে ২২