তাপস পালের মৃত্যুর জন্য মোদী সরকারের বিরুদ্ধে আঙুল তুলেছেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায়। পাল্টা তৃণমূলের বিরুদ্ধেই বাঙালির রোম্যান্টিক হিরোর মৃত্যুর দায় চাপিয়েছেন বিজেপির রাজ্য় সভাপতি। অবশেষে বাঙালির  প্রিয় সাহেবের মৃত্যুর কারণ নিয়ে মুখ খুললেন তাঁর স্ত্রী নন্দিনী। 

মিথ্য়ে কেসে ফাঁসানো হচ্ছে, মোদীর সঙ্গে বৈঠকে ক্ষোভ দিলীপের

সম্প্রতি ফেসবুকে তাপস পালের মৃত্যুর কারণ সামনে এনেছেন প্রয়াত অভিনেতার স্ত্রী। সোশ্যাল মিডিয়ায় নন্দিনী লিখেছেন, মুম্বইয়ের হোলি ফ্যামিলি হাসপাতালই প্রয়াত তৃণমূল সাংসদের মৃত্যুর জন্য় দায়ী। তবে শুধু  স্ত্রী নন, মেয়ে সোহিনীও একের পর এক বিস্ফোরক পোস্ট করেছেন সোশ্যাল মিডিয়ায়।

রক্তের হোলি খেলে বলছেন রঙ খেলবেন না, মোদীকে আক্রমণ তৃণমূলের

নন্দিনী  তাঁর ফেসবুক পোস্টে লিখেছেন, আমি বিচার চাই। ওরা আমার স্বামীকে খুন করেছে। ইতিমধ্য়েই অনলাইনে নন্দিনীর এই পোস্টে শোরগোল পড়ে গিয়েছে। গত ১৮ ফেব্রুয়ারি ভোরে জীবনাবসান হয় তাপস পালের। মুম্বইয়ের একটি বেসরকারি হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। আর সেই হাসপাতালের বিরুদ্ধে ঘোরতর অভিযোগ তুলেছেন তাপস পত্নী। তাঁর অভিযোগ, হাসপাতালের গাফিলতির জন্যই মৃত্যু হয়েছে তাপস পালের।

নৈহাটিতে বিজেপি কর্মীকে বন্দুকের বাঁট দিয়ে মার, দায় ঝেড়ে তৃণমূল বললো 'ওদের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব'

তখন টলিউড হিসাবে  নাম পায়নি  টলিপাড়া। বাংলা সিনেমায় উত্তম কুমার পরবর্তী রোম্য়ান্টিক হিরো হিসাবে উঠে আসেন তাপস পাল। নিখাদ সিদেসাধা মুখ দেখে তাপস পালকে হিরো হিসাবে মনে নেয় বাঙালি। দাদার কীর্তি, সাহেব,  ভালোবাসা ভালোবাসা, গুরুদক্ষিণা মতো সিনেমায় নিজের  অভিনয়ের  জাত চিনিয়ে দেন তাপস পাল।  গতানুগতিক ছবি ছাড়াও ভিন্ন  ধারার বাংলা ছবি যেমন বুদ্ধদেব দাশগুপ্ত-র উত্তরা ও মন্দ মেয়ের উপাখ্যান ছবিতেও নজর কাড়েন তাপস পাল ৷ পরে তৃণমূলের টিকিটে তাঁর রাজনৈতিক  জবন শুরু।