শহর কলকাতার রাস্তায় রাতের অন্ধকারে  ট্যাক্সি চালকের  হেনস্তার শিকার হন অভিনেত্রী সাংসদ মিমি চক্রবর্তী। তারপর  গাড়ি থেকে সেই ট্যাক্সি চালককে টানতে টানতে নিয়ে যান থানায়। তারপর গ্রেফতার করা হয় সেই ট্য়াক্সি চালককে। শুক্রবার আলিপুর আদালতে এসজিএম ৬ নম্বর ঘরে আসেন। সেখান থেকে প্রেসিডেন্সি জেলে আসেন। জর্জ সাহেবের সামনে অভিযুক্তকে দার করিয়ে শুক্রবার সনাক্ত করণ প্রক্রিয়া হবে।

 

 

আরও পড়ুন, বার্গারে ফাঙ্গাস, চটে লাল মিমি
 

প্রসঙ্গত, ১৪ সেপ্টেম্বর রাতে কলকাতার রাস্তায় রাতের অন্ধকারে,  ট্যাক্সি চালকের  হেনস্তার শিকার হন অভিনেত্রী সাংসদ মিমি চক্রবর্তী। জিম করে  ক্লান্ত হয়ে বাড়ি ফিরছিলেন মিমি। সেখানে গড়িয়াহাট এলাকার কাছে এক ট্যাক্সি তাঁর গাড়ির পাশে এসে দাঁড়ায়। গাড়িতে বসে থাকা ট্যাক্সি চালক মিমির দিকে তাকিয়ে অশালীন অঙ্গভঙ্গি করতে থাকে। এরপরেই মিমি  সেই ট্যাক্সি চালককে থানায় নিয়ে যান। তাঁর অভিযোগের ভিত্তিতে গাড়িয়াহাট থানার পুলিশ দেব কুমার যাদব বলে ওই ব্য়াক্তিকে গ্রেফতার করে।

আরও পড়ুন, IPL শুরু হতেই বেটিং চক্রের রাঘব বোয়ালরা লালবাজারের জালে, রাতারাতি গ্রেফতার ৯ কলকাতায়


শুক্রবার আদালত থেকে মিমির বেরোনোর পর তিনি অভিযুক্তকে চিনতে পারলেন কিনা প্রশ্ন করতে বললেন, ' অবশ্যই চিনেছি, আমি চিনতে না পারলে , কে পারবে'। এদিকে এক সপ্তাহ আগে  আলিপুর আদালতে মিমি বলেন, 'আমি আজ আসলাম কারণ এই লোকটিকে ছাড়া যাবে না। একে ছাড়লে এই লোকটি এরপর আবার কোনও মহিলার গায়ে হাত দিতো। এদের মতো কয়েকটা লোকের জন্য আমার শহর, আমার  প্রশাসনের নাম বদনাম হয়। আমি চাই আমার শহরের মেয়েরাও যেন সুরক্ষিত থাকে।'

 

আরও পড়ুন, লষ্কর সন্দেহে বাংলার মেয়ে তানিয়ার বিরুদ্ধে UAPA ধারায় মামলা, ৭৫০ পাতার নথি জমা দিল NIA

 

     

 

বিষম খেয়ে শিশু মৃত্যু, হাসপাতালকে জরিমানা কমিশনের, কোভিড-ক্রাইমে ফের অভিযুক্ত ডিসান

চিকিৎসা সংক্রান্ত খরচ গোপন, কলকাতার ৬ হাসপাতালের বিরুদ্ধে মামলা স্বাস্থ্য কমিশনের

কোভিড আক্রান্তের ফ্ল্য়াটে ঝুলল তালা, বিপাকে পরিবার, রইল করোনা ক্রাইমের সাতকাহন