বিধানসভা নির্বাচনের আগেই  সরকারি চাকরি নিয়ে তৎপর হল রাজ্য। সূত্রের খবর, বিভিন্ন জেলার স্কুল পরিদর্শকদের কাছ থেকে শূন্যপদের হিসাব নিতে শুরু করেছে বিকাশ ভবন। এরপরই দফতর কর্মীদের জানিয়েছেন, এটা এসএসিসি-র বিজ্ঞপ্তি জারির অন্যতম লক্ষণ।

আরও পড়ুন, বেহালা কাণ্ডে উঠে এল হাড় হিম করা তথ্য, আগুন লাগিয়ে আত্মঘাতী মা ও মেয়ে

সূত্রের খবর, ২০১৮ সালের ৮ মার্চ থেকে স্কুলগুলিতে কত শূন্যপদ সৃষ্টি হয়েছে তা জেলা বিদ্যালয় পরিদর্শকদের রিপোর্ট দিয়ে জানাতে বলেছে শিক্ষা দফতর। কোন জেলায় কত শিক্ষাকর্মীর পদ খালি রয়েছে তাও সরকারকে জানাতে হবে। বিকাশ ভবন সূত্রে জানা গিয়েছে, স্কুলগুলিতে ছাত্র শিক্ষকের অনুপাত ৪০ থেকে কমিয়ে ৩৫ করতে বলা হয়েছে। সঙ্গে শিক্ষাগত যোগ্যতার ভিত্তিতে মাধ্যমিক ও উচ্চ প্রাথমিকে ভাগ করা হবে শিক্ষকদের। জানা গিয়েছে, অনলাইনে আবেদনের ব্যবস্থা করবে স্কুল সার্ভিস কমিশন। একজন প্রার্থী একাধিক পদে আবেদন করতে পারবেন। শিক্ষাকর্মীর পদেও আবেদন করা যাবে । 

আরও পড়ুন, আদ্রতা বেড়ে হাঁসফাস অবস্থা, নিম্নচাপে জেরে ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস

 অপরদিকে সাত বছর ধরে আটকে উচ্চ প্রাথমিকের নিয়োগ প্রক্রিয়া। আদালতে একের পর এক মামলায় এখনো নিয়োগপত্র দিতে পারেনি সরকার। আর এরই মধ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্তরে বিজ্ঞপ্তি জারি করতে  তারা উদ্যোগী হয়েছে। 
 

 

সব রেকর্ড ব্রেক, রাজ্য়ে একদিনে করোনা আক্রান্ত ৮৯৫

করোনায় আক্রান্ত বিধাননগরের ডিসি ট্রাফিক, উপসর্গ না থাকায় সপরিবার হোম কোয়ারেন্টাইনে

  মৃত্যুর পর ২ দিন বাড়ির ফ্রিজে করোনা দেহ, অভিযোগ 'সাহায্য মেলেনি স্বাস্থ্য দফতর-পুরসভার'

 করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু এক সেনা কর্তার, ফোর্ট উইলিয়ামের শোকের ছায়া

  অঙ্গপ্রত্যঙ্গ বিকলের পরও কোভিড জয়ী ৫৪-র দুধ ব্যবসায়ী, শহরকে দিলেন এক সমুদ্র আত্মবিশ্বাস

কোভিড রোগী ফেরালেই লাইসেন্স বাতিল, হাসপাতালগুলিকে হুঁশিয়ারি রাজ্য়ের

 কলকাতায় একদিনে চিহ্নিত প্রায় ২০০ বাড়ি, কনটেইনমেন্ট জোন বৃদ্ধির কারণ বললেন মুখ্যসচিব