স্কুল শিক্ষকের হাতে নির্যাতনের শিকার হয়েছিল এক পাকিস্তানি স্কুল পড়ুয়া। শিক্ষকের মারে প্রাণ পর্যন্ত হারায় সেই ছাত্র। আর শিক্ষকের ওপর রাগে গোটা স্কুলই জ্বালিয়ে দিল নিহত ওই ছাত্রের এক সহপাঠী। 

নিহত ছাত্রের নাম হাফিজ হুনাইন বিলাল। ক্লাসে পড়া না পারায় স্কুল শিক্ষকের হাতে নির্যাতনের শিকার হয়ে প্রাণ হারায় বিলাল। এই ধটনার পরে ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে বিলালের সহপাঠীরা। এরপর বোতলে করে পেট্রোল নিয়ে গিয়ে আচমকাই সেই স্কুলে আগুন লাগিয়ে দেয় ক্ষিপ্ত পড়ুয়ারা। ঘটনার পর একাধিক স্কুল পড়ুয়াকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। পুলিশি সূত্রে খবর, স্কুল বিল্ডিং-এর দুটি ঘর জ্বলে গিয়েছে বলে খবর। তবে ইতিমধ্যেই অভিযুক্ত লাহোরের আমেরিকান লিসেটাফ স্কুলের শিক্ষক গুলশন-এ-রবিকেও পুলিশ গ্রেফতার করেছে বলে খবর। 

শিক্ষকের হাতে নির্যাতিত হয়ে ছাত্রেরর মৃত্যুর ঘটনা প্রথম প্রকাশ্যে আসে যখন ছাত্রের এক তুতো ভাই বিলালের মৃত্যুর ঘটনা ব্যাখ্যা করে সোশ্যাল মিডিয়ায় একটা টুইট করে। নেটিজেনরা গোটা ঘটনার ব্যাখ্যা শুনে স্কুল এবং ওই স্কুল শিক্ষকের চূড়ান্ত সমালোচনায় মুখর হয়ে ওঠে। 

 

নিখোঁজ ল্যান্ডার বিক্রম, তবুও ব্যর্থ নয় ভারতের দ্বিতীয় চন্দ্রাভিযান, জানুন কেন

'যা করতে পারো না তা করো কেন'- চন্দ্রযান ২ নিয়ে ভারতকে কটাক্ষ পাকিস্তানের বিজ্ঞান মন্ত্রীর

শৈশবে চটি কেনার সামর্থ্য ছিল না, চাঁদকে ছোঁয়ার স্বপ্ন দেখালেন কৃষক পরিবারে জন্মানো শিভন

মৃত ছাত্রের পরিবারের তরফে দাবি করা হয়, অভিযুক্ত শিক্ষক তাঁর মাথা দেওয়ালে ঠুকে দেয়, এবং তার পেটে লাথি মারে বলেও অভিযোগ, যার ফলে ছেলেটি চেতনা হারায়। শুধু তাই নয়, তাকে এই অবস্থায় হাসপাতালেও নিয়ে যাওয়া হয়নি বলে দাবি তার পরিবারের। পরে চিকিৎসকরা জানান গুরুতর আঘাত পেয়েই মৃত্যু হয়েছে তার।