কেটে গিয়েছে দাম্পত্য জীবনের দীর্ঘ ৩২ বছর। এত বছর পর বিবাহবিচ্ছেদ চাইছেন 'লগন' খ্যাত অভিনেতা রঘুবীর যাদবের স্ত্রী পূর্ণিমা। কিন্তু এত বছর পর কেন এই সিদ্ধান্ত তা জানার জন্যই মুখিয়ে রয়েছেন দর্শক। বিষয়টি একটু খোলসা করে বলা যাক, বিবাহবিচ্ছেদের পাশাপাশি উঠে এসেছে এক চাঞ্চল্যকর তথ্য। বলিউডের অভিনেত্রী থেকে শুরু করে একাধিক নারীর সঙ্গে সহবাস করেছেন রঘুবীর। আর সেই কারণেই আদালতের দ্বারস্থ হয়েছেন অভিনেতার স্ত্রী।

আরও পড়ুন-বিকিনি পরে যোগাসনে পোজ, সমুদ্রের পাড়ে উষ্ণতা মাখানো ছবি পোস্ট করে ভাইরাল এই অভিনেত্রী...

বিয়ের ৬ বছর কাটতে না কাটতেই  সংসারে অশান্তি শুরু হয়। আর তখনই বাঙালি অভিনেত্রী নন্দিতা দাসের সঙ্গে সম্পর্কে জড়ান রঘুবীর। এমনকী দুজনে একসঙ্গে লিভ-ইন করেন বলেও জানা গেছে। সম্পর্ক এতদূর গড়ায় যে নন্দিতাকে বিয়ের প্রস্তাব দিয়ে নিজের স্ত্রীকে ডির্ভোসের প্রস্তাব দেন অভিনেতা। তারপর আচমকাই বিচ্ছেদ হয়ে যায় নন্দিতার সঙ্গে। 

আরও পড়ুন-পরিকল্পনা-অনুমতি ছাড়াই রেখাকে চুমু, বিপাকে কমল হাসন...

আরও পড়ুন-৬৩-তে ফাঁস করলেন নিজের ফিটনেস রহস্য, দেখে নিন 'মি.ইন্ডিয়া'র গোপন ভিডিও...

নন্দিতার সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদের পর বলি অভিনেতা সঞ্জয় মিশ্রর  স্ত্রীর রোশনির সঙ্গে সম্পর্কে জড়ান অভিনেতা। সম্পর্কই শুধু নয়, রোশনি অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়লে সঞ্জয়ের সঙ্গে ডিভোর্স দিয়ে রঘুবীরের সঙ্গে থাকতে চান রোশনি। তারপর থেকে পূর্ণিমার সঙ্গে তার সম্পর্ক আর জোড়া লাগেনি। পূর্ণিমা নিজেই তাদের সন্তানকে বড় করে তোলে। যদিও পুরো বিষয়টি নিয়ে এখনও মুখ খোলেননি অভিনেত্রী নন্দিতা দাস।  এই ঘটনার কারণেই বিবাহ-বিচ্ছেদ চাইছেন অভিনেতার স্ত্রী। পাশাপাশি খোরপোশ বাবদ ১০ কোটি টাকাও দাবি করেছেন পূর্ণিমা। সেই সঙ্গে ছেলের জন্য প্রতি মাসে ১ লক্ষ টাকা দাবি করেন বলি অভিনেতার স্ত্রী। বিচ্ছেদের পাশাপাশি খোরপোষের টাকার পরিমাণ দেখেই জোর গুঞ্জন শুরু হয়েছে বি-টাউনে।