রাজ্য়ে করোনা যুদ্ধে প্রথম সারিতেই দাড়িয়ে পুলিশ প্রশাসন। এদিকে একের পর এক করোনা আক্রান্তে হওয়ার খবরে  পুলিশকর্মীদের মধ্যে আতঙ্ক বাড়ছে। জানা গিয়েছে, লালবাজারে কর্মরত এক পুলিশকর্মী করোনায় আক্রান্ত। গরফা থানার আরও এক আধিকারিক ও কনস্টেবলের রিপোর্ট পজ়িটিভ। এই নিয়ে শুধু গরফা থানাতেই মোট ৬ জন পুলিশকর্মী সংক্রমিত হলেন। 

আরও পড়ুন, বিমানে কলকাতায় ফিরতে চাইলে রইল প্রয়োজনীয় তথ্য, জানুন কী কী পদক্ষেপ নিতে হবে

জানা গিয়েছে, কলকাতা পুলিশের র‌্যাফের এক কর্মীর রিপোর্টও এ দিন পজ়িটিভ এসেছে। তাঁর লালবাজারে ডিউটি ছিল। সেখানেই তাঁর পরীক্ষার রিপোর্ট পজ়িটিভ এসেছে বলে জানা যায়। এরপর দ্রুতই তাঁকেই হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। তবে তাঁর করোনার উপসর্গ দেখা যায়নি বলে খবর। ওই পুলিশকর্মী পিটিএসে কর্মরত ছিলেন। সেখানে দিন দুয়েক আগে ১৬ জন পুলিশকর্মী সংক্রমিত হওয়ার পরে পিটিএসের ব্যারাকের সব পুলিশকর্মীর লালারসের নমুনা পরীক্ষা করতে পাঠানো হয়েছিল। এ দিন সেই রিপোর্টই আসে। শিয়ালদহ ট্র্যাফিক গার্ডের দুই আধিকারিকের লালারসের নমুনাও এ দিন পাঠানো হয়েছে। করোনার উপসর্গ দেখা দেওয়ায় তাঁদের ছুটিতে পাঠানো হয়েছে।

 আরও পড়ুন, মানসিক ভারসাম্যহীন ছেলেকে কুপিয়ে খুনের অভিযোগ বাবা-মা ও ভাইয়ের বিরুদ্ধে, উত্তপ্ত গড়ফা


অপরদিকে, গরফা থানার যে পুলিশ আধিকারিকের রিপোর্ট পজ়িটিভ এসেছে, তিনি আগে থেকেই কোয়রান্টিনে ছিলেন। এ দিন সেই সঙ্গে আরও এক কনস্টেবলের সংক্রমণের খবর জানা যায়। করোনা সন্দেহে ওই থানার এক কনস্টেবলের মৃত্যুতে থানা ভাঙচুর করা হয়েছিল। বিক্ষোভকারী পুলিশকর্মীদের অভিযোগ, আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে চললেও গরফা থানাকে যথাযথ ভাবে জীবাণুমুক্ত করা হচ্ছে না। এই পরিস্থিতিতে ফের সংক্রমণের খবরে গরফা থানার পুলিশকর্মীদের মধ্যে আতঙ্ক বাড়ছে। থানার এক পুলিশকর্মীর অভিযোগ,'আক্রান্তের  সংস্পর্শে আসা পুলিশকর্মীদের কোয়রান্টিনে পাঠানো হচ্ছে না।' পুলিশকর্মীদের দাবি 'প্রশাসনের তরফে শীঘ্রই গরফা থানাকে সিল করা হোক।'

 

 

করোনা আক্রান্ত রাজ্য়ের তৃণমূল বিধায়ক, কালীঘাটের ফ্ল্য়াট সিল করে বসল পুলিশি প্রহরা

করোনা আক্রান্ত বেলেঘাটা থানার আধিকারিক সহ পরিবারের ৬ সদস্য, আইডিতে এখন চিকিৎসধীন

দেহ রাখার জায়গা না থাকায় ডিপ ফ্রিজ বসছে মেডিকেলের মর্গে, মৃতদেহ 'ম্যানেজমেন্ট'-এ নিয়োগ অ্যাসিস্ট্যান্ট

কোভিড পজিটিভ হয়ে মৃত্য়ু প্রখ্যাত ইতিহাসবিদ হরিশঙ্কর বাসুদেবনের