অবশেষে খরা কাটল। কলকাতা ফুটবল লিগে জয়ের খাতা খুলল মোহনবাগান। বিএএস স্পোর্টিং ক্লাবকে হারিয়ে জয়যাত্রা শুরু বাগানের। এদিন বাগানের উজ্জ্বল নক্ষত্র নংদাম্বা নাওরেম। 

প্রথম ম্য়াচে পিয়ারলেসের সঙ্গে হার। পরের ম্যাচে কাস্টমসের সঙ্গে সর্বসাকুল্যে ড্র। কলকাতা ফুটবল লিগে জয়ের মুখ দেখতে মরিয়া ছিলেন বাগানের কোচ কিবু ভিকুনহা। শেষমেশ জয় এল বটে কিন্তু বাগানের পারফর্মমেন্স দেখে চিন্তা দূর হচ্ছে না মোহনবাগান সমর্থকদের। এদিন কল্যাণী স্টেডিয়ামে মোহনবাগানের হয়ে প্রথম গোলটি করেন সালভা চামোরো । ম্য়াচের ৩০ মিনিটে আসে প্রথম গোল। দলের হয়ে ৪৬ মিনিটে বিএসএসের জালে বল জড়ান নংদাম্বা নাওরেম। বিএসএসের হয়ে গোল করেন উইলিয়াম ওপোকু। বাগানের প্রথম গোলের তিন মিনিটের মধ্যেই তা শোধ করে দেন ওপোকু।

প্রাপ্তির আরও পড়ুন :তালিকায় এবার ৫৫ লক্ষের বাড়ি! রাণু মন্ডলের গানে মুগ্ধ সলমন খান, দিলেন উপহার

আরও পড়ুন :খানের সিদ্ধান্তে নাজেহাল আলিয়া! হচ্ছে না ইনশাল্লাহ, বিপাকে আলিয়া
ডুরান্ড ফাইনালে গোকুলাম কেরলের কাছে হারের পর প্রথম এগারো নিয়ে আর ঝুঁকি নিতে পারেননি ভিকুনা। খেলানো হয় লালরাম চুলোভাকে। এদিন খেলা শুরু হতেই ম্য়াচের চার মিনিটে এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ পায় মোহনবাগান। পেনাল্টি বক্সে বিএসএসের ডিফেন্ডার বিকাশের হাত বল লাগায় বড় সুযোগ পায় বাগান। কিন্তু পেনাল্টি মিস করেন ফ্রান্সিসকো গোঞ্জালেজ। বাগানের মতো ভালো সুযোগ আসে বিএসএসের কাছে। ম্যাচের ১১ মিনিটে বাগানের কিপার দিবজিৎকে ওয়ান ইজটু ওয়ান পেয়েও সুযোগ হাতছাডা় করেন উইলিয়াম ওপোকু। তিন কাঠির মধ্য়ে না রেখে ওয়াইড শট মারেন প্রাক্তন মিনার্ভা প্লেয়ার। ম্যাচে গোল আসে সালভা চামোরোর পা থেকে। নংদাম্বা নাওরেমের একটা ক্রস থেকে প্রথম গোল পায় বাগান।

দেশের ফিরেই আরও পড়ুন :মোদীর কাছে সোনার মেয়ে! প্রধানমন্ত্রী বললেন দেশের গর্ব, ক্রীড়ামন্ত্রী দিলেন পুরস্কার

আরও পড়ুন :কলকাতায় পৌঁছেই বেফাঁস কিরমানি, পন্থের বদলে ঋদ্ধিকেই বাছলেন তিনি
কিন্তু বাগানকে বেশিক্ষণ স্বস্তিতে রাখেনি বিএসএস। মাত্র তিন মিনিটের মধ্যেই গোল শোধ করে দেন ওপোকু। গুরবিন্দর বাধা দিতে গিয়েও কোনও লাভ হয়নি। পরে অবশ্য় সহজ সুযোগ মিস করেন নাওরেম। ম্যাচের ৩৬ মিনিটে নেট ফাকা পেয়েও গোল করতে পারেননি তিনি। ১-১ দিয়েই শেষ হয় ফার্স্ট হাফ। ম্য়াচের দ্বিতীযার্ধে ব্রিটোর ক্রস থেকে হেডে গোল করেন নাওরেম। ম্য়াচ ২-১ হবার পর ডিফেন্সিভ মুডে চলে যায় বাগান। পরে বিএসএস বেশ য়েক বার সুযোগ পেয়েও ম্য়াচে সমতা পেরাতে পারেনি।