হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা শহরের করোনা আক্রান্ত রোগীর ব্যবহৃত সামগ্রী ফেলতে হবে পুরসভার হলুদ ডাস্টবিনে। এজন্য় শহরে মজুত করা হয়েছে ২০০০ হলুদ ডাস্টবিন। নির্দিষ্ট স্থানে রাখা হলুদ ডাস্টবিনে কেউ রোগীর ব্যবহৃত সামগ্রী ফেলতে অজুহাত খোঁজেন, সে ক্ষেত্রে অন্য ব্য়বস্থা। তখন বেসরকারি সংস্থার গাড়িতে ফেলা বাধ্য়তামূলক। এবং সেই খরচও বহন করতে হবে রোগীর পরিবারকে। সাফ জানালেন মুখ্য প্রশাসক ও পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম।

আরও পড়ুন , শনিবার সাতসকালে ঘুমন্ত তরুণীকে গুলি করে খুন, চাঞ্চল্য ছড়াল রিজেন্ট পার্কে

মুখ্য প্রশাসক ও পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম জানিয়েছেন, আগামী সপ্তাহ থেকে শহরের বিভিন্ন জনবহুল স্থানে হলুদ বিশেষ ডিজাইনের ডাস্টবিন চালু হয়ে যাবে।  কলকাতায় পড়ে থাকা মাস্ক, হেড-ক্যাপ ও গ্লাভসের মতো নানা সামগ্রী এবার শহরের ২০০০ হলুদ ডাস্টবিনে ফেলতে হবে। বিষয়টি নিয়ে বায়ো মেডিক্যাল বর্জ্য সংগ্রহকারী সংস্থার সঙ্গে পুরসভার চুক্তি হয়েছে। বর্জ্য নিয়ে যাওয়ার জন্য ডাস্টবিন পিছু দৈনিক ৫০০ টাকা এবং কোয়ারেন্টাইন সেন্টার পিছু ১৪০০ টাকা পুরসভা বহন করবে।


 আরও পড়ুন, কলকাতার ৪০ রুটে বন্ধ বাস পরিষেবা, চরম ভোগান্তিতে যাত্রীরা
 
অপরদিকে পুরমন্ত্রী আরও জানিয়েছেন,হলুদ ডাস্টবিন থেকে কলকাতা পুরসভার নিজস্ব সাফাইকর্মীরা বর্জ্য তুলবেন না। বাড়ি থেকে করোনা রোগীর ব্যবহৃত সামগ্রী পুরকর্মীরাও সংগ্রহ করবেন না। তিনি বলেন,'শহরবাসীকে অনুরোধ করছি, সবাই মাস্ক-গ্লাভস হলুদ পাত্রে ফেলুন। যাঁরা হোম কোয়ারেন্টাইনে আছেন তাঁরা প্যাকেট করে তাঁদের ব্যবহার্য সামগ্রী ওই পাত্রে ফেলে আসুন। নতুবা বেসরকারি সংস্থাকে নিজেদের খরচে বাড়ির বর্জ্য সরানোর ব্যবস্থা করতে হবে।'
 

 

 

 কলকাতায় একদিনে চিহ্নিত প্রায় ২০০ বাড়ি, কনটেইনমেন্ট জোন বৃদ্ধির কারণ বললেন মুখ্যসচিব

 করোনা আক্রান্ত বেলুড়ের এক মহারাজ, মঠ খোলার দিন আপাতত অনিশ্চিত

করোনায় সুরক্ষাবিধি নিয়ে বিক্ষোভের জের, বদলি ১৩ পুলিশকর্মীর

করোনা আক্রান্ত নিজাম প্যালেসের এক সিবিআই আধিকারিক, স্যানিটাইজ করা হল পুরো অফিস

করোনা আবহে সুরজিৎ কর পুরকায়স্থের প্রাক্তন স্ত্রী-শাশুড়ির দেহ উদ্ধার, তদন্তে পুলিশ

দেহ রাখার জায়গা না থাকায় ডিপ ফ্রিজ বসছে মেডিকেলের মর্গে, মৃতদেহ 'ম্যানেজমেন্ট'-এ নিয়োগ অ্যাসি