Asianet News Bangla

দুবার বলেও কাজ হয়নি, সিইএসসি-র উপর চটে লাল শোভন

  • 'কী নিয়মে এবং কোন হিসেবে বিদ্যুৎ বিল তৈরি করা হচ্ছে' 
  • ব্য়াখা চেয়েছেন বিদ্যুৎমন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় 
  • রাজ্য সরকার সিইএসসিকে 'অ্যাডভাইজ়রি' দিচ্ছে 
  • বলা হচ্ছে, 'এক মাসে বিলের ভুল সংশোধন করুক সংস্থাটি' 
Minister sobhandeb chattopadhyay ask CESC to clarify customers questions RT
Author
Kolkata, First Published Jul 18, 2020, 4:56 PM IST
  • Facebook
  • Twitter
  • Whatsapp

 
 বিদ্যুৎ বিলে অস্বাভাবিক বৃদ্ধি নিয়ে সিইএসসি কর্তৃপক্ষের কাছে ব্যাখ্যা চাইলেন বিদ্যুৎ মন্ত্রী শোভনদেব চ্যাটার্জি। অপরদিকে বিদ্যুতের বিল নিয়ে শহরবাসীর বিক্ষোভ দেখে নড়ে বসল রাজ্য। নবান্ন সূত্রের খবর, সরকার সিইএসসিকে 'অ্যাডভাইজ়রি' দিচ্ছে। তাতে বলা হচ্ছে, এক মাসের মধ্যে বিলের ভুল সংশোধন করুক সংস্থাটি।

 আরও পড়ুন, অস্ত্রোপচারের আগেই করোনা পজিটিভ, অন্য় হাসপাতালে নিতে গিয়েই দুধের শিশুর মৃত্যু কলকাতায়


বিদ্যুৎমন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় জানিয়েছেন, 'আমার বাড়িতে বহু লোক আসছে এবং বিদ্যুৎ এৎ বিল নিয়ে অভিযোগ জানাচ্ছে। আমি আগে সিইএসসি-র অফিসারদের সঙ্গে কথা বলেছি কিন্তু তাতে কোনও সুরাহা মেলেনি। তাই আমি শুক্রবার দুপুরে তাঁদেরকে আমার অফিসে ডেকে পাঠিয়েছিলাম। আমি সিইএসসি এর অফিসারদের জানিয়েছি, কী নিয়মে এবং কোন হিসেবে বিদ্যুৎ বিল তৈরি করা হচ্ছে, তার বিস্তারিত ও সুস্পষ্ট ব্যাখ্যা দিয়ে  শনিবারের মধ্যে সংবাদমাধ্যমে বিজ্ঞাপন দিতে হবে।' সূত্রের খবর, সিইএসসি-কে যে অ্যাডভাইজরি পাঠাতে চলেছে রাজ্য, তাতে যথেষ্ট কড়া হুঁশিয়ারি থাকবে। তাতে বলা হবে, আগামী এক মাসের মধ্যে বিলের ভুল ত্রুটি ঠিক করতে হবে। ওই সময়ের মধ্যে কোনও গ্রাহকের ক্ষেত্রে বিল বাবদ টাকা নেওয়া যাবে না। যদি কোনও গ্রাহক মাত্রাতিরিক্ত বিল মেটাতে না পারেন, তবে তাঁর বিদ্যুতের লাইন কাটা যাবে না। 

আরও পড়ুন, শহরে লেখিকাকে যৌন হেনস্থার হুমকি, ওলা ক্যাবের চালকের বিরুদ্ধে কী অভিযোগ সঙ্গীতার

অপরদিকে সিইএসসি-র দাবি, করোনা সংক্রমণের জেরে মার্চ থেকে লকডাউন শুরু হয়। তার ফলে মাঝে কয়েকমাস মিটার রিডিং নেওয়া বন্ধ ছিল । স্বাভাবিকভাবেই এপ্রিল এবং মে মাসে অনুমানের ভিত্তিতে বছরে গড়ে বিদ্যুৎ ব্যবহারের নিরিখে বিল পাঠানো হয়েছে। তবে সেটা বিদ্যুৎ ব্যবহারের তুলনায় অনেক কম। জুন থেকে ফের মিটার রিডিং শুরু হয়েছে। বাড়তি ইউনিট বিলে যুক্ত হয়েছে। তার উপর আবার গ্রীষ্মকালে বিদ্যুৎ খরচ হয় তুলনামূলক বেশি। তাই অতিরিক্ত বিল দেখে বিরক্ত হচ্ছেন গ্রাহকরা। যদিও গ্রাহকরা  ক্ষোভ উগরে দিয়ে বলেছেন, ' প্রতিবছর গ্রীষ্মে একই বৈদ্যুতিন সামগ্রী ব্যবহার করেও এত বিল আসেনি। তাহলে চলতি বছরে এত টাকা বিল কোথা থেকে আসছে' বলে বিক্ষোভ দেখিয়েছেন।     

 

 

করোনায় ফের ১ এসবিআই কর্মীর মৃত্য়ু, মৃতের পরিবারকে চাকরি দেওযার দাবিতে ব্যাঙ্ক কর্মীরা

  করোনা আক্রান্ত আরও ১৯ ব্য়াঙ্ক কর্মী, ট্রেনিং সেন্টারকে কোয়ারেন্টিন কেন্দ্র করার প্রস্তাব

   পূর্ব ভারতের প্রথম সরকারি প্লাজমা ব্যাঙ্ক-কলকাতা মেডিকেল, করোনা রুখতে প্রস্তুতি তুঙ্গে

  মৃত্যুর পর ২ দিন বাড়ির ফ্রিজে করোনা দেহ, অভিযোগ 'সাহায্য মেলেনি স্বাস্থ্য দফতর-পুরসভার'

 করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু এক সেনা কর্তার, ফোর্ট উইলিয়ামের শোকের ছায়া

  অঙ্গপ্রত্যঙ্গ বিকলের পরও কোভিড জয়ী ৫৪-র দুধ ব্যবসায়ী, শহরকে দিলেন এক সমুদ্র আত্মবিশ্বাস

কোভিড রোগী ফেরালেই লাইসেন্স বাতিল, হাসপাতালগুলিকে হুঁশিয়ারি রাজ্য়ের

Follow Us:
Download App:
  • android
  • ios