শুভজিৎ পুততুন্ডঃ- কোভিড আক্রান্তদের জন্য সেফ হোম চিকিৎসা পরিষেবা কলকাতায়। 'বেড মিলছে না কোভিড হাসপাতালে', একাধিকবার এই অভিযোগ উঠেছে। উপসর্গহীন বা সামান্য উপসর্গযুক্ত ভাইরাস সংক্রমিত অথচ উপসর্গ প্রকাশ পাচ্ছেনা  রোগীরা যাতে হাসপাতালে শয্যা আটকে না রাখেন সে জন্য পুর এলাকায় তৈরি করা হচ্ছে 'সেফ হোম'। 

আরও পড়ুন, পাটুলিতে কোভিড আক্রান্তকে ঘরে ঢুকে 'জুতো-পেটা', অন্তঃসত্তা স্ত্রীকে ধাক্কা


রাজ্যে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্য়া। প্রায় প্রতিদিন রেকর্ড ভাঙছে মৃত এবং আক্রান্তের সংখ্য়াতে। এমন পরিস্থিতিতে রাজ্যের কোভিড হাসপাতালে ঘুরেও বেড মেলেনি, ভর্তি না নেওয়ার অভিযোগ করেছেন উপসর্গহীন বা সামান্য উপসর্গযুক্ত রোগীরা। এবার তাঁদের কথা ভেবেই  ইতিমধ্যেই গীতাঞ্জলি ও কিশোর ভারতী স্টেডিয়ামকে সেফ হোম হিসেবে ঘোষণা করেছে রাজ্য সরকার। গীতাঞ্জলির জন্য কেএমডিএ-কে এবং কিশোর ভারতী স্টেডিয়ামের জন্য পূর্ত দপ্তরকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। অপরদিকে, বারাসাতের বিদ্যাসাগর ক্রীড়াঙ্গনে তৈরি হয়েছে সেফহোম। 

বারাসাত পৌরসভার উদ্যোগে ৩০ টি বেড দিয়ে কাজ শুরু হল বৃহস্পতিবার থেকে। এদিকে পরে আরও কুড়িটি বেড সংযোজিত করে মোট ৫০ বেডের সেফ হোম তৈরি করা হবে। যারা করোনা ভাইরাস সংক্রমিত অথচ উপসর্গ প্রকাশ পাচ্ছেনা তাদেরকেই এখানে রাখা হবে। বিশেষ করে যাদের বাড়িতে পরিবারের লোক সংখ্যা বেশি এবং থাকার জায়গা কম তারাই এখানে থাকার সুযোগ পাবেন। খাওয়া-দাওয়া থেকে শুরু করে বিনা পয়সায় চিকিৎসা সবটাই মিলবে সেফ হোমে থাকা আবাসিকদের। পুরুষ ও মহিলাদের ঢাকার পৃথক পৃথক ব্যবস্থা করা হয়েছে। পুরসভার প্রশাসন বোর্ডের স্বাস্থ্য বিষয়ক দপ্তর এর সদস্য চম্পা দাস জানান, 'যেভাবে করোনা ভাইরাস সংক্রমিত হচ্ছে, তাতে পুরসভার এই উদ্যোগকে সব রাজনৈতিক দলের নেতারা স্বাগত জানিয়েছেন'।

 

 

করোনায় ফের ১ এসবিআই কর্মীর মৃত্য়ু, মৃতের পরিবারকে চাকরি দেওযার দাবিতে ব্যাঙ্ক কর্মীরা

   পূর্ব ভারতের প্রথম সরকারি প্লাজমা ব্যাঙ্ক-কলকাতা মেডিকেল, করোনা রুখতে প্রস্তুতি তুঙ্গে

  মৃত্যুর পর ২ দিন বাড়ির ফ্রিজে করোনা দেহ, অভিযোগ 'সাহায্য মেলেনি স্বাস্থ্য দফতর-পুরসভার'

  অঙ্গপ্রত্যঙ্গ বিকলের পরও কোভিড জয়ী ৫৪-র দুধ ব্যবসায়ী, শহরকে দিলেন এক সমুদ্র আত্মবিশ্বাস

কোভিড রোগী ফেরালেই লাইসেন্স বাতিল, হাসপাতালগুলিকে হুঁশিয়ারি রাজ্য়ের