বিশ্ব জুড়ে করোনা ভাইরাসের মৃত্যু মিছিল অব্যাহত। ইতিমধ্যে চল্লিশ হাজার ছাড়িয়ে অনেকটাই এগিয়ে গিয়েছে মৃতের সংখ্যা। লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে বিশ্বজুড়ে আক্রান্ত। ৮ লক্ষ ছাড়িয়ে এখন তা দৌঁড়ছে ৯ লক্ষের সীমানা ছুঁতে। দিনে দিনে আমাদের দেশের পরিস্থিতিও সঙ্গীন হচ্ছে। প্রতিদিনই নতুন করে সংক্রমণের শিকার হচ্ছেন বহু মানুষ। গোটা দেশেই এখন ছড়িয়ে পড়েছে কোভিড ১৯। দেশজুড়ে লকডাউন করেও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হচ্ছে না। এর মধ্যেই অবশ্য একটা ভাল খবর শোনালেন গেবষক বিজ্ঞানীরা। বাড়িতে বসেই এবার করা যাবে কোভিড ১৯ এর পরীক্ষা।

বর্তমানে দেশজুড়ে চলছে লকডাউন। সংক্রমণ এড়াতে গৃহবন্দি থাকতে অনুরোধ করছে প্রশাসন। এর মধ্যে করোনা পরীক্ষা করানো এখনও বেশ খানিকটা ঝামেলার। নির্দিষ্ট হাসপাতালে গিয়ে করাতে হবে পরীক্ষা। অনেক ক্ষেত্রে পরীক্ষা করানোর পর বেশ খানিকটা সময় অপেক্ষা করতে হওয়ায় দেখা যাচ্ছে  রিপোর্ট হাতে আসার আগেই মৃত্যু হচ্ছে আক্রান্তের। তবে এই অসুবিধা এবার দূর হতে চলেছে। ঠিক আর পাঁচটা রক্ত পরীক্ষার মত এবার বাড়িতে বসে করানো যাবে করোনা ভাইরাসের পরীক্ষাও। 

কোভিড ১৯ পরীক্ষার এই সুযোগ হাতের মুঠোয় নিয়ে এসেছে বেঙ্গালুরুর প্র্যাক্টো কোম্পানি। সংস্থাটি থাইরোকেয়ারের সঙ্গে যুক্ত হয়ে করোনা টেস্টের এই পদ্ধতি তৈরি করেছে। পরীক্ষা পদ্ধতি নিয়ে কোনো সন্দেহের অবকাশ নেই, কারণ সংস্থাটি  ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অব মেডিক্যাল রিসার্চের থেকে স্বীকৃত ।

 

স্বামীকে বিরক্ত না করে মেকআপ করুন, লকডাউনে সময় কাটাতে পরামর্শ দিল দেশের সরকার

দেশবাসীর মঙ্গল কামনায় হিন্দু ধর্মের ওম মন্ত্র জপছেন স্পেনের চিকিৎসকরা, ভাইরাল ভিডিও

স্বেচ্ছায় আইসোলেশন গেলেন থাইল্যান্ডেন রাজা, সঙ্গী হলেন ২০ জন সুন্দরী

https://www.practo.com/covid-test এবং  https://covid.thyrocare.com/ এই দুটি ওয়েবসাইট থেকে করোনা টেস্ট বুক করতে পারবেন যে কেউ। অনলাইনে বুকিংয়ের পর সংস্থার তরফে লোক পাঠিয়ে সংগ্রহ করা হবে নমুনা। এরপর সমস্ত রকম সুরক্ষা বজায় রেখে তা পাঠানো হবে ল্যাবে। আর এই টেস্টের রিপোর্ট প্র্যাক্টো সংস্থার ওয়েবসাইটে ২৪ থেকে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে পাওয়া যাবে। যদিও এখনও পর্যন্ট এই টেস্ট কেবল মুম্বইতেই করা যাবে বলে নিজেদের ব্লকে জানিয়েছে সংস্থাটি। তবে ধীরে ধীরে তা দেশের অন্যান্য জায়গাতেও উপলব্ধ হবে বলে আশ্বাস দেওয়া হয়েছে। 

এই করোনা পরীক্ষা যারা করাবেন তাঁদেরকে অবশ্যই কিছু গাইডলাইন মেনে চলবে হবে বলে জানিয়ে দিয়েছে প্র্যাক্টো। পরীক্ষা করাতে অবশ্যই লাগবে চিকিৎসকের প্রসেক্রিশপশন ও টেস্ট করার সম্মতিপত্র। যার পরীক্ষা হবে তাঁর ফটো আইডি কার্ডও লাগবে। টেস্টের মূল্য রাখা হয়েছে ৪৫০০ টাকা।

প্র্যাক্টোর  চিফ হেলথ স্ট্র্যাটিজি অফিসার আলেকজান্ডার কুরুভিলা জানিয়েছেন, “দেশে যে হারে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ছে তাতে পরিস্থিতি মোকাবিলায় আরও বেশি টেস্টিং প্রয়োজন। ইতিমধ্যেই সরকার প্রতিদিন যাতে আরও বেশি টেস্ট করা যায় সেদিকে নজর দিয়েছে। আমরা আমাদের মতো করে চেষ্টা করছি। কারণ, এই লড়াইয়ে আমাদের জিততেই হবে। আর তার জন্য প্রয়োজন উচ্চমানের স্বাস্থ্য পরিষেবা।”