কলকাতা বিমানবন্দরে নামার পর হোটেল কোয়ারেন্টিনে যাওয়া নিয়ে বচসা। বিলেত ফেরৎ ডাক্তারি পড়ুয়ারা কেউই কোয়ারেন্টিনে রাজি নয়। এনিয়ে বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষে ও পুলিশের সঙ্গে ঝামেলা চলার পর তাঁরা নিজের সিদ্ধান্তেই স্থির থাকে। এবং শেষ অবধি তাঁরা  হোটেল কোয়ারেন্টিনে যাননি।

আরও পড়ুন, করোনা যুদ্ধে জয়ী রাজ্যের সবচেয়ে বয়স্ক রোগী, অনুপ্রেরণা হয়ে বাড়ি ফিরলেন ৯৪-র বৃদ্ধ


সূত্রের খবর,  কিরগিস্তানে আটকে পড়া ডাক্তারি পড়ুয়ারা বৃহস্পতিবার রাতে কলকাতা বিমানবন্দরে নামেন। এরপর হোটেল কোয়ারইন্টিনে যাওয়া নিয়ে কলকাতা বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ ও পুলিশের সঙ্গে বচসা শুরু হয়। প্রায় চার ঘন্টা ধরে বিক্ষোভ চলার পর পড়ুয়াদের কাছে নতি স্বীকার করে পুলিশ।  বিমানে ফেরা ১৫১ জন পড়ুয়ার কেউই হোটেল কোয়ারেন্টিনে না গিয়ে হোম কোয়ারেন্টিনে যাওয়ার সিদ্ধান্তে অনড় থাকেন। রাত ১টা নাগাদ সকল পড়ুয়াই জোর করে কলকাতা বিমানবন্দর থেকে বেরিয়ে নিজেদের বাড়িতে চলে যায় তাঁরা।

আরও পড়ুন, রাতের বৃষ্টিতে পারদ নামল অনেকটাই, শুক্রবারও ভিজবে কলকাতা সহ রাজ্য


প্রসঙ্গত, দেশ তথা রাজ্যে বাইরে থেকে কেউ ফিরলে তাঁকে সরকারি কোয়ারেন্টিন কেন্দ্র অথবা সরকারের চিহ্নিত হোটেল কোয়ারেন্টিনে ফিরতে হবে। তারপর নির্দিষ্ট সময় আসলেই করোনা উপসর্গ না আসলে তাঁকে ছুটি দেওয়া হবে। তারপর সে বাড়ি ফিরতে পারবে। উল্লেখ্য, রাজ্যে সরকারি আমলার ছেলে বিদেশ থেকে ফিরে বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষের কথা না শুনে ঘুরে বেরিয়েছিলেন নবান্ন সহ সারা শহর। তারপরেরটুকু সবার মনে আছে। তারপর সে কোভিড আক্রান্ত হয়। সংস্পর্শে আসা সকলেরই ঝুকি গিয়েছিল বেড়ে। আর এবারও সেই ছবিই ফিরে কলকাতা বিমানবন্দরে।

 

রাজ্য়ে মৃতের সংখ্যা ৬০০ ছাড়াল, ভ্য়াক্সিনের অপেক্ষায় বিশ্ব

কোভিড রোগী ফেরালেই লাইসেন্স বাতিল, হাসপাতালগুলিকে হুঁশিয়ারি রাজ্য়ের

 কলকাতায় একদিনে চিহ্নিত প্রায় ২০০ বাড়ি, কনটেইনমেন্ট জোন বৃদ্ধির কারণ বললেন মুখ্যসচিব

 করোনায় সুরক্ষাবিধি নিয়ে বিক্ষোভের জের, বদলি ১৩ পুলিশকর্মীর

করোনা আক্রান্ত নিজাম প্যালেসের এক সিবিআই আধিকারিক, স্যানিটাইজ করা হল পুরো অফিস

করোনা আবহে সুরজিৎ কর পুরকায়স্থের প্রাক্তন স্ত্রী-শাশুড়ির দেহ উদ্ধার, তদন্তে পুলিশ

দেহ রাখার জায়গা না থাকায় ডিপ ফ্রিজ বসছে মেডিকেলের মর্গে, মৃতদেহ 'ম্যানেজমেন্ট'-এ নিয়োগ অ্যাসি