নিজের জীবনকে বাজি রেখে তরুণীর শ্লীলতাহানির রোখেন নীলাঞ্জনা ভট্টাচার্য এবং তাঁর স্বামী দীপ শতপথী। কলকাতা-সহ দেশজুড়ে আলোড়ন ফেলেছে তাঁদের সাহসিকতার এই কাহিনি। মানুষ যে মানুষের জন্য তার এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত আরও একবার স্থাপন হল নীলাঞ্জনা ও দীপেরর জন্য। আর এই তরুণ দম্পতির সাহসিকতা ও মানবিকতা-কে কুর্ণিশ জানাল এশিয়ানেট নিউজ বাংলা। সোমবার এশিয়ানেট নিউজ বাংলা তাদের ফেসবুক পেজ এবং টুইটার পেজের কভারের পুরোটা ভরিয়ে দেয় নীলাঞ্জনা এবং দীপের এক যুগলবন্দি ছবিতে। সেখানে এই সাহসি দম্পতিকে সম্মান জানানো হয় এশিয়ানেট নিউজ বাংলার পক্ষ থেকে।

 

 

আরও পড়ুন, অন্যকে বাঁচাতে চলন্ত গাড়ির সামনে গৃহবধূর জীবন বাজি, পা ভেঙে রুখলেন তরুণীর শ্লীলতাহানি


শনিবার রাত সাড়ে বারোটা নাগাদ একটি নিমন্ত্রণ রক্ষা করে ইএম বাইপাস লাগোয়া আনন্দপুর থেকে ফেরার তোড়জোড় করছিলেন নীলাঞ্জনা ভট্টাচার্য এবং তাঁর স্বামী দীপ শতপথী। আর প্লটের সামনে পার্ক করে রাখা গাড়িতে চড়েও বসেছিলেন নীলাঞ্জনা এবং দীপ। আচমকাই তাঁরা খেয়াল করেন পিছনে দাঁড়িয়ে থাকা একটি গাড়ি থেকে তরুণীর আর্তনাদ ভেসে আসছে। চকিতে নিজের গাড়িটিকে পিছনের গাড়ির সামনে দাঁড় করিয়ে দেন দীপ। স্ত্রী নীলাঞ্জনা দ্রুত গাড়ি থেকে নেমে ছুটে যান পিছনের গাড়িটির দিকে। সে সময়ই ওই গাড়ি থেকে এক তরুণীকে রাস্তায় ছুঁড়ে ফেলা হয়। নীলাঞ্জনা দৌঁড়ে ওই তরুণীকে রাস্তা থেকে তুলতে যান। আর সেই সময় দ্রুত গতিতে থাকা ওই গাড়িতে ধাক্কা খান নীলাঞ্জনা। রাস্তায় পড়ে যান তিনিও। এমনকী, কোনও ভ্রক্ষেপ না করেই ওই গাড়ি সোজা নীলাঞ্জনাার পায়ের উপর দিয়ে চাকা তুলে বেরিয়ে যায়। মুহূর্তের মধ্যে পায়ের হাঁড় টুকরো টুকরো হয়ে যায়। গাড়ি ধাক্কায় মাথাতেও চোট পান নীলাঞ্জনা। দীপ এবং নীলাঞ্জনার এই সাহসিকতা সমক্ষে আসে রবিবার দুপুরে। তারপর থেকেই নীলাঞ্জনার দ্রুত আরোগ্য কামনা করছেন বহু মানুষ। সোমবার ই এম বাইপাসের পাশে একটি হাসপাতালে নীলাঞ্জনার অস্ত্রোপচার করা হয়।

 

 

 

 

সোমবার দীপ শতপথীর সঙ্গে টেলিফোনে যোগাযোগ করে আমাদের সংবাদমাধ্যম। প্রথমেই তিনি এশিয়ানেট নিউজ বাংলাকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন এবং বলেন,'অপারেশন সাকসেস ফুল। ইনফেকশনের রিস্ক ফ্য়াক্টর রুখতে এই মুহূর্তে নীলাঞ্জনাকে চিকিৎসকের অবজারবেশনে রাখা হয়েছে। তবে এই মুহূর্তে সংবাদ মাধ্যমকে যেভাবে পাশে পেলাম, তার জন্য আবারও ধন্যবাদ জানাই।' অপারেশন এবং আগের দিনের সদ্য ঘটা ঘটনায় স্ত্রীকে নিয়ে চিন্তায় রয়েছেন দীপ শতপথী।  তারপরেও এশিয়ানেট নিউজ বাংলার প্রশ্নে খুশি হয়েই জানালেন, তাঁর স্ত্রী  নীলাঞ্জনা চট্টোপাধ্যায় আগেও এমন বহুবার শহরের মানুষের সাহায্য করতে উদ্য়োগী হয়েছেন। তিনি একটি এনজিও-র সঙ্গেও যুক্ত।' গর্বের সঙ্গে জানান দীপ। তবে পাশপাশি তিনি আরও জানান, ওই ঘটনার পর তিনি স্ত্রীর চিকিৎসার জন্য আম্বুল্য়ান্সকে ফোন করেন। এদিকে রাত বারোটায়  কোনও আম্বুল্য়ান্সই না পেয়ে শেষে ১০০ ডায়াল করেন। এরপরেই কসবা ট্র্যাফিক গার্ডের এক সার্জেন্ট ঘটনাস্থলে পৌঁছে কলকাতা পুলিশের ট্রমা কেয়ার অ্যাম্বুল্যান্সে চাপিয়ে নীলাঞ্জনাকে বাইপাসের একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যান। 'কিন্তু ওই শেষ, হাসপাতালে পৌছে দেবার পর, আমাদের কোনও খবরও নেয়নি এবং যোগাযোগ রাখেনি পুলিশ প্রশাসন।  অভিযুক্তও ধরা পড়েনি', জানান দীপ শতপথী। 

 

আরও পড়ুন, ট্যাংরায় ঘরের বাইরে মৃতদেহ, বাবাকে খুন করে শান্তির ঘুম দিল ছেলে

 

করোনা সতর্কতায় মাস্কের ব্য়বহার জানতে দেখুন ভিডিও....

 "
  

        

 

চিকিৎসা সংক্রান্ত খরচ গোপন, কলকাতার ৬ হাসপাতালের বিরুদ্ধে মামলা স্বাস্থ্য কমিশনের

কোভিড আক্রান্তের ফ্ল্য়াটে ঝুলল তালা, বিপাকে পরিবার, রইল করোনা ক্রাইমের সাতকাহন

কোভিড রোগী ভর্তিতে ৫০ হাজার টাকার বেশি নেওয়া যাবে না, নয়া নির্দেশিকা জারি রাজ্যের

ভয় নেই করোনায়, মেডিক্য়ালের ৪ তলার কার্নিশে পা দোলাচ্ছে রোগী

ভুয়ো টেস্টের ফাঁদে পড়ে করোনায় মৃত্যু এক ব্য়াক্তির, গ্রেফতার প্রতারণা চক্রের ৩ জন

করোনায় ফের ১ এসবিআই কর্মীর মৃত্য়ু, মৃতের পরিবারকে চাকরি দেওযার দাবিতে ব্যাঙ্ক কর্মীরা