করোনা আতঙ্ক কাটিয়ে এখন অনেকটাই স্বাভাবিকের পথে জার্মানির একাধিক দেশ। সেই তালিকায় রয়েছে করোনা বিধ্বস্ত দেশ ইতালি, স্পেন, জার্নামি। ধীরে ধীরে স্বাভাবিক ছন্দে ফিরছে জনজীবন। একইসঙ্গে তাল মিলিয়ে ফিরছে এইসব দেশগুলির প্রাণ ফুটবল। ইতিমধ্যেই অনুশীলন শুরু হয়ে গিয়েছে ইতালি ও স্পেনে। আর করোনা আতঙ্ক কাটিয়ে ইউরোপের  সেরা পাঁচ লিগের মধ্যে জার্মান বুন্দেসলিগা আবার শুরু হচ্ছে পরের সপ্তাহে ১৬ মে থেকে। ইতিমধ্যেই জার্মানির ক্লাবগুলির সব প্লেয়ারদের করোনা পরীক্ষা হয়ে গিয়েছে। শুরু হয়েছে অনুশীলনও। । চ্যান্সেলর আঙ্খেলা ম্যার্কেল জানিয়েছেন, সব ম্যাচ হবে ফাঁকা গ্যালারিতে। ম্যাচের দিন স্টেডিয়ামে থাকতে পারবে মাত্র ৩০০ জন। সেই সঙ্গে করোনার সংক্রমণ আছে কি না জানতে ফুটবলারদের নিয়মিত মেডিক্যাল পরীক্ষা দিতে হবে। এখন পর্যন্ত বুন্দেশলিগার দু’টি ডিভিশনে আক্রান্তের সংখ্যা ১০। পরীক্ষা হয়েছে ১,৭২৪ জনের।

আরও পড়ুনঃমে মাসের শেষ থেকে প্রি-সিজন শুরু করছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া,লাগু হবে একাধিক নয়া নিয়ম

আরও পড়ুনঃফিটনেস কোনও সমস্যা নয়, লকডাউনের পর ক্রিকেটে ফিরতে প্রস্তুত বিরাট কোহলি

লিগ শুরুর আনন্দ থাকলেও, প্লেয়ার, কোচ, সাপোর্টিং স্টাফদের নিরাপত্তা ও সুরক্ষার দিকটি খুব কড়া ভাবে পরিচালনা করছে জার্মান প্রশাসন। প্রশাসনের তরফ থেকে পর্যাপ্ত সুরক্ষার দিকটি খতিয়ে দেখা হলেও, ক্লাবগুলিকেও সতর্ক থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। প্রত্যেকটি ক্লাবও খুবই গুরুত্ব সহকারে দেখছে বিষয়টিকে।  বুন্দেসলিগার অন্যতম প্রধান ক্লাব  বরুসিয়া ডর্টমুন্ড ঘোষণা করেছে তারা ফুটবলারদের সম্ভাব্য সর্বোচ্চ পর্যায়ের নিরাপত্তা দিতে প্রস্তুত। ক্লাবের চিফ এক্সিকিউটিভ অফিসার আর্লিং হ্যালান্ডদের জন্য সর্বোচ্চ পর্যায়ের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করেছেন। এক বিবৃতিতে হান্স জোয়াকিম জানিয়েছেন, ‘কড়া নিয়মানুবর্তিতা মেনেই দেশে অনেক কল-কারখানার চালু হচ্ছে। একইভাবে দেশে চালু হচ্ছে পেশাদার ফুটবলও। এমন সময় ফুটবলারদের নিরাপত্তার বিষয়টি বরুসিয়া ডর্টমুন্ডের চরম দায়িত্ববোধের মধ্যে পড়ে।’ আরও যোগ করে তিনি বলেছেন, ‘মারণ ভাইরাসের প্রকোপ এড়াতে আমাদের ক্ষমতা অনুযায়ী আমরা সর্বোচ্চ পর্যায়ের সমস্ত নিরাপত্তা ফুটবলার এবং তাদের পরিবারদের প্রদান করব।’ হান্স জোয়াকিমের আরও মত, ‘দর্শকদের নিয়ে লিগ চালুর করার যুক্তি আর্থিক দিক থেকে খুব একটা টেকসই হতো না। তাই দর্শক ছাড়া লিগে নামার কথা বরুসিয়া ডর্টমুন্ডের মতো একটা ক্লাবের পক্ষে ভীষণ চ্যালেঞ্জিং হলেও আমাদের খানিকটা বাধ্য হয়েই মেনে নিতে হবে।’ শুধু বরুশিয়া ডর্টমুন্ড নয়,বায়ার্ন মিউনিখ, উলফসবার্গ সহ অন্যান্য ক্লাবগুলিও প্লেয়ার নিরাপত্তার দিকটি নিয়ে খুবই সতর্কতা অবলম্ব করছে।

আরও পড়ুনঃবুন্দেসলিগায় ফুল ফুটিয়েছেন এই বাঙালি কোচ,জানুন রবিন দত্তের কাহিনী