পয়লা জুন থেকে রাজ্য়ের মন্দির মসজিদ গির্জা গুরুদ্বার খুলে গিয়েছে। সম্প্রতি এনিয়ে নবান্নে নির্দেশ দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু এরপরেও ১ জুন থেকে মন্দির না খোলার সিদ্ধান্তেই স্থির থাকছে বেলুড় মঠ, দক্ষিণেশ্বরের মতই কালীঘাট মন্দির কর্তৃপক্ষও।

আরও পড়ুন, পিটিএসে নতুন করে আক্রান্ত আরও ৮, করোনা মুক্ত হয়ে কাজে ফিরলেন ১০০ পুলিশ কর্মী

প্রসঙ্গত, শুক্রবার নবান্নে জানালেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, ১ জুন সকাল ১০টা থেকে রাজ্যে সমস্ত ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হবে। কোনও রকম জমায়েত ছাড়াই সর্বাধিক ১০ জনকে নিয়ে মন্দিরের কাজকর্ম চালানো যাবে। মন্দির খুললেও মানতে সোশ্যাল ডিস্ট্যান্সিং। করোনা মোকাবিলায় বড় কোনও জমায়েত  এড়িয়েই চলতে হবে। কোনও ধর্মীয় ভীড় করা যাবে না। তবে মন্দির, মসজিদ, গুরুদ্বার বা অন্য ধর্মীয় স্থান খুলবে। মন্দিরে একবারে ১০ জন করে ঢুকতে পারবে। বেশি লোক ঢোকা চলবে না।  অবশ্য়ই মাস্ক পরতে হবে। মন্দির, মসজিদ, গির্জা সব পবিত্র জায়গাতেই  রাখতে হবে স্যানিটাইজেশনের ব্যবস্থাও।   ধর্মীয় স্থানে প্রবেশের আগে স্যানিটাইজেশন বাধ্যতামূলক। কিন্তু বাংলায় মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে অন্য়ান্য়  মন্দির খুললেও কালিঘাট মন্দির কর্তৃপক্ষ মন্দির খোলা হয়নি। তবে মন্দির চত্তরে নিরাপত্তা ছিল চোখে পড়ার মতন।

আরও পড়ুন, করোনার সংক্রমণ এবার নবান্নে, আক্রান্ত ২ গাড়ি চালক


অপরদিকে, বেলুড় মঠ ও দক্ষিণেশ্বর কর্তৃপক্ষ জানায়, সোমবার থেকেই মঠ ও মন্দির প্রাঙ্গণ সকলের জন্য খুলে দেওয়া সম্ভভ নয় । আগামী ১৫ দিনের মধ্যেও সে ব্যবস্থা করা সম্ভব হবে না বলেই জানান তাঁরা । ১৫ জুনের পর বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে মঠ ও মন্দির খোলার ব্যাপারে। পাশপাশি তারকেশ্বর মন্দিরও এখন খোলা হচ্ছে না বলেই জানা গিয়েছে।

 

 

বাংলাদেশ ফেরৎ ২ যাত্রী করোনা পজিটিভ, কোয়ারান্টিনের পর আক্রান্ত হওয়ায় চিন্তায় স্বাস্থ্য দফতর

 কলকাতা মেডিক্যালের ছাদের কার্নিশে বসে করোনা রোগী, সামলাতে গিয়ে নাজেহাল কর্তৃপক্ষ

করোনা মোকাবিলায় বড়সড় উদ্য়োগ, পরিষেবা বাড়াতে ৫০০ ডাক্তার-নার্স নিচ্ছে রাজ্য

দেহ রাখার জায়গা না থাকায় ডিপ ফ্রিজ বসছে মেডিকেলের মর্গে, মৃতদেহ 'ম্যানেজমেন্ট'-এ নিয়োগ অ্যাসিস্ট্যান্ট

কোভিড পজিটিভ হয়ে মৃত্য়ু প্রখ্যাত ইতিহাসবিদ হরিশঙ্কর বাসুদেবনের